কক্সবাজার, বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

আইপিএলে জুয়া খেলা নিয়ে প্রতিবন্ধী কিশোর হত্যার রহস্য উদঘাটন

আইপিএলে জুয়া খেলার টাকা নিয়ে বিরোধের জেরে প্রতিবন্ধী কিশোর রুবেল মিয়াকে হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে পিবিআই জামালপুর। হত্যাকান্ডে জড়িত দুজনের মধ্যে সোহেলকে আজ বৃহস্পতিবার সকালে তার নিজ বাড়ি থেকে আটক করা হয়। নিহত প্রতিবন্ধী কিশোর রুবেল মিয়া (১৭) শেরপুরের ঝিনাইগাতি উপজেলার কান্দুলী এলাকার মো: নূরুল হকের ছেলে।

আজ বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে পিবিআই জামালপুর কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার এম.এম সালাহ উদ্দীন জানান, আটক সোহেলকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে জানায়, রুবেল মিয়া, সোহেল(১৯), সোহরাবসহ(২০) একটি চক্র শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার পাইকুড়া বাজারে নিয়মিত আইপিএলে জুয়া খেলতো। এই জুয়ার টাকা নিয়ে রুবেল মিয়ার সাথে সোহেল ও তার খালাতো ভাই সোহরাবের ঝগড়া হয়।

এর জের ধরে চলতি বছরের ১৯ আগস্ট বিকালে সোহরাব ফোন করে রুবেল মিয়াকে পাইকুড়া বাজারে আসতে বলে। ওইদিন সোহরাব, সোহেল ও রুবেল একসাথে বিভিন্ন স্থানে ঘুড়ে বেড়ায়। পরে মাছ ধরার কথা বলে কানি বিলে নিয়ে যাওয়ার পর সোহরাব ও সোহেল পিছন থেকে রুবেলকে ঝাপটে ধরে উপুর করে কাঁদা পানিতে ফেলে দেয়। এসময় সোহেল পিঠের উপর বসে পড়ে এবং সোহরাব মাথা কাঁদায় চেপে ধরে রুবেলকে হত্যা করে।

এদিকে প্রতিবন্ধী কিশোর রুবেল মিয়া মাঝে মধ্যেই কাউকে না জানিয়ে  সময় দু-তিন দিনের জন্য বাইরে বেড়াতে যেত। তাই ১৯ আগস্ট বাড়িতে না ফিরলেও কেউ খোঁজ করেনি। কিন্তু চার-পাঁচদিন চলে যাওয়ার পরও ফিরে না আসায় এবং ফোন বন্ধ থাকায় গত ২৫ আগস্ট রুবেল মিয়ার বাবা নূরুল হক ঝিনাইগাতি থানায় নিখোঁজ ডায়রী করেন।

গত ৬ সেপ্টেম্বর কানি বিল থেকে রুবেলের গলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে পিবিআই জামালপুরের পুলিশ পরিদর্শক আবুল বাশার মোহাম্মদ বদরুজ্জামানের নেতৃত্বে একটি টিম মামলাটি তদন্ত করে নিহত রুবেলের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি সোহেলের বাড়ি থেকে উদ্ধার করে এবং সোহেলকে আটক করে।

পাঠকের মতামত: