কক্সবাজার, বৃহস্পতিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২০

উন্নয়নের জোয়ারে তাক লাগিয়ে দেওয়া হবে : স্থানীয় সরকারমন্ত্রী

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেন, ‘সারা দেশের গ্রামে নাগরিক সুবিধার সবকিছু পৌঁছে দেওয়া হবে। সে অঙ্গীকার নিয়ে যাত্রা হয়েছে, সে যাত্রার দায়িত্বের বেশির ভাগ আমার দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রণালয়ের ওপর অর্পিত। আমার মন্ত্রণালয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে কাজ করছে। উন্নয়নের জোয়ারে সমগ্র পৃথিবীকে তাক লাগিয়ে দেওয়া হবে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবায়ন হবে। বাংলাদেশের প্রতিটি গ্রামকে শহরে রূপান্তরিত করার অঙ্গীকার নিয়ে কাজ শুরু করেছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার। শহরের সব সুযোগ-সুবিধা গ্রামে পৌঁছে দেওয়া হবে। বাংলাদেশ উন্নত দেশের কাতারে স্থান করে নেবে। জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে যে দায়িত্ব দিয়েছেন, আমি যাতে সততার সঙ্গে সে দায়িত্ব পালন করতে পারি, সেজন্য আপনারা দোয়া করবেন। বাংলাদেশের অন্যান্য স্থানের মতো আমার নির্বাচনী এলাকায়ও প্রচুর উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাস্তবায়ন হয়েছে। এসব উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সঠিক সময়ে শেষ হবে। লাকসাম পৌরসভার ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাস্তবায়ন হয়েছে।’

শুক্রবার লাকসাম পৌরসভার পঞ্চম পরিষদ বাস্তবায়িত কার্যক্রমের ভিডিও ডকুমেন্টারি ও উন্নয়ন পরিক্রমা বইয়ের মোড়ক উন্মোচন এবং লাকসাম পৌরসভা বাস্তবায়নে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, জাতীয় চার নেতা ও মুক্তিযোদ্ধা ম্যুরাল এবং বীর মুক্তিযোদ্ধার ভাস্কর্য উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় তিনি আরো বলেন, ‘আমার দলের কোনো নেতাকর্মী অন্যায়, অবিচার, অত্যাচার, ঘুষ, দুর্নীতি, সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজিতে সম্পৃক্ত হলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। কেউ বিচার-সালিসের নামে টাকা খেলে তার বিরুদ্ধে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যারা জনপ্রতিনিধি তাদের জনগণের সঠিক সেবা দেওয়ার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি। লাকসাম পৌরসভার মেয়র অধ্যাপক মো. আবুল খায়েরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন লাকসাম উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ইউনুছ ভূঁইয়া, কুমিল্লা জেলা পরিষদের সদস্য অ্যাডভোকেট আবু তাহের, কুমিল্লা জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী খন্দকার আসাদুজ্জামান তুষার, লাকসাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ কে এম সাইফুল আলম, মনোহরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহেল রানা, লাকসাম উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মহব্বত আলী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পড়শী সাহা, রেলওয়ে শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক পলাশ, লাকসাম রেলওয়ে জংশনের স্টেশনমাস্টার শাহাব উদ্দিন, লাকসাম পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী জসিম আহমেদ, লাকসাম উপজেলা প্রকৌশলী খন্দকার গোলাম শওকত, ঢাকাস্থ লাকসাম-মনোহরঞ্জ বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি অহিদ উল্যাহ মজুমদার, লাকসাম উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম হিরা, মনোহরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, লাকসাম পৌরসভার কাউন্সিলর আবদুল আলিম দিদার, মোহাম্মদ উল্যাহ, খলিলুর রহমান, আফতাব উল্যাহ চৌধুরী জন্টু, উপজেলা যুবলীগ নেতা মনিরুল ইসলাম রতন, মোশারফ হোসেন মজুমদার, মনির হোসেন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নিজাম উদ্দিন শামীম, সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. সানি, সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম তুষার, লাকসাম পৌরসভা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফ খান স্বাধীন, সাধারণ সম্পাদক কাউসার আহমেদসহ অনেকে।

এদিকে শুক্রবার স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম তার গ্রামের বাড়ি পৌমগাঁও মনোহরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের সঙ্গে এলাকার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেন। এ সময় তিনি নেতাকর্মী ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেন। পরে তিনি তার বাবা-মায়ের কবর জিয়ারত করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন মনোহরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহেল রানা, উপজেলা চেয়ারম্যান মো. জাকির হোসেন, কুমিল্লা জেলা পরিষদের সদস্য মাস্টার আবদুল কাইয়ুম চৌধুরী, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো. আমিরুল ইসলাম, উপজেলা প্রকৌশলী মোহাম্মদ আল আমিন সরদার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন ভেণ্ডর, আবুল কালাম আজাদ, আবুল বাশার মজুমদার, চেয়ারম্যান জিয়াউর রহমান শাহিন জিয়া, আলমগীর হোসেন, কামাল হোসেন, আবদুল মান্নান, ইকবাল হোসেন, মোস্তফা কামাল, মহিউদ্দিন চৌধুরী, আল আমিন ভূঁইয়া, আবদুল হান্নান হিরন, মাস্টার রুহুল আমিন, সাইদুর রহমান দুলাল, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক দেওয়ান জসিম উদ্দিন, যুগ্ম আহ্বায়ক সফিকুর রহমান, আবুল বাশার, জানে আলম, আমির হোসেন, মহিউদ্দিন, এম এইচ নোমান, যুবলীগ নেতা মো. কামাল হোসেন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক মো. সেলিম কাদের চৌধুরী, যুগ্ম আহ্বায়ক বেল্লাল হোসেন, রুহুল আমিন, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুজ্জামান শামীম, সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন বিপ্লবসহ অনেকে।

পাঠকের মতামত: