কক্সবাজার, শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০

কক্সবাজারের কলাতলীর সেই পাহাড়ে ফের উচ্ছেদ অভিযান

কক্সবাজার শহরের কলাতলী সৈকত পাড়া এলাকায় সরকারি পাহাড় কেটে দখলকরা প্রায় ২০টি মতো অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন।

বুধবার (৮ জুলাই) দুপুরে কক্সবাজার সদর সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ শাহরিয়ার মুক্তারের নেতৃত্বে এই অভিযানে চলে।

এর ৬ মাস আগে কলাতলী সৈকত পাড়ায় পাহাড় কেটে স্থাপনা নির্মাণের বিষয়ে পূর্বকোণ অনলাইনে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছিল। সংবাদ প্রকাশের দিনও সেখানে অভিযান চালানো হয়েছিল এসিল্যান্ডের নেতৃত্বে।

সদর সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ শাহরিয়ার মুক্তার পূর্বকোণ অনলাইনকে বলেন, প্রতিবছর বর্ষা মৌসুমে কক্সবাজার শহরে পাহাড় ধ্বসের কারণে জানমালের ব্যাপক ক্ষতিসাধন হয়। পাহাড় ধ্বসের মত এই দুর্যোগের কারণ পুরোটাই প্রাকৃতিক নয়। মানবসৃষ্ট কারণেই বরং এ দুর্যোগ নেমে আসে। কিছু অসাধু লোকের লোভ এবং অপরিনামদর্শী কর্মকাণ্ডের কারণে প্রকৃতির এই রূঢ় রূপ আমাদের প্রতিবছর দেখতে হয়।

এসিল্যান্ড বলেন, শহরের ১২ নং ওয়ার্ড সৈকতপাড়ার এই ভূমিদস্যুদের আমরা ইতোমধ্যে চিহ্নিত করেছি। বেশ কয়েকজনের নামও পাওয়া গেছে। সেখানে একটি সমিতিও রয়েছে।  সরকারি সম্পত্তিতে অবৈধ অনুপ্রবেশ এবং পাহাড় কর্তনের অপরাধে তাদের বিরুদ্ধে আমরা ফৌজদারি ব্যবস্থা গ্রহণ করছি দ্রুত সময়ে।

এছাড়া সরকারি জায়গা ভূয়া কাগজপত্র কিংবা নোটারি করে দখল বিক্রয় করা আইনত অবৈধ। ভূয়া কাগজপত্র তৈরি করে প্রতারণার আশ্রয় নেয়ার জন্য তাদের বিরুদ্ধে আলাদা মামলা করবে উপজেলা রাজস্ব প্রশাসন।

যার প্রেক্ষিতে ৮ জুলাই দুপুরে সৈকতপাড়ায় পাহাড় কেটে তৈরি করা প্লট এবং ঘরের অবৈধ দখলদারদের স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। অভিযানে পরিবেশ অধিদপ্তর কক্সবাজার, পিডিবি এবং আনসার ব্যাটেলিয়ন সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

পাঠকের মতামত: