কক্সবাজার, শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১

কক্সবাজার-সেন্টমার্টিনে পর্যটক বাড়লেও উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি

এমনিতেই শীতের মৌসুমে সেন্টমার্টিনে যেতে মরিয়া থাকে পর্যটকরা। তারপর আবার কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিনে জাহাজ চলাচল শুরু হওয়ায় বেড়েছে সেই সংখ্যা। তবে, করোনাকালে স্বাস্থ্যবিধি মানতে উদাসীন ভ্রমন পিপাসুরা। জেলা প্রশাসক বলছেন পরিস্থিতি অবনতি হলে রাতে থাকায় নিষেধাজ্ঞা আসতে পারে।

দেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ, সেন্টমার্টিন। যেখানে পরতে পরতে ছড়িয়ে আছে, প্রকৃতির অপার সৌন্দর্য্য। দ্বীপের চারপাশে স্বচ্ছ নীল জলরাশিতে দেখা মেলে, প্রবালের অদ্ভুত মায়াবি রূপ।

বৈশ্বিক মহামারি করোনায়, দেশজুড়ে আতঙ্ক থাকলেও; এ বিষয়ে তেমন সতর্ক নন স্থানীয়রা। বেশিরভাগেরই অজানা সামাজিক দূরত্ব মানার বাধ্যবাধকতা। নেই, মাস্কের সাথে কোনো সন্ধি।

বিচ্ছিন্ন এমন একটি জনপদে করোনা সংক্রমণ হতে পারে, পর্যটকদের মাধ্যমে। অথবা এখান বেড়াতে গিয়ে সংক্রমিত হতে পারেন, পর্যটকরা। এমন জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলায় নেই তেমন কোনো ব্যবস্থা।

জেলা প্রশাসক জানান, পর্যটকরা সতর্ক না হলে আবারও সীমিত করে দেয়া সেন্টমার্টিনে ভ্রমণ। নিষেধাজ্ঞা আসতে পারে রাতযাপনের ওপর। কক্সবাজার থেকে জাহাজে সরাসরি সেন্টমার্টিন যাওয়ার সুবিধায় দ্বীপটিতে বাড়ছে ভ্রমণকারীর সংখ্যা।

পাঠকের মতামত: