কক্সবাজার, বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০

খাগড়াছড়িতে প্রতিবন্ধী নারী ধর্ষণের ঘটনায় আটক ৭

খাগড়াছড়িতে এক বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি এবং বুদ্ধি প্রতিবন্ধী নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশ চট্টগ্রামসহ খাগড়াছড়ির বিভিন্নস্থানে অভিযান চালিয়ে সাতজনকে আটক করেছে। তবে পুলিশ ঘটনাটির তদন্তের স্বার্থে আটককৃতদের নাম প্রকাশে অস্বৃীকৃতি জানিয়েছে।

বুধবার দিবাগত গভীর রাতে খাগড়াছড়ি জেলা শহরের বলপাইয়া আদাম এলাকায় গোলাবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের সামনে এই ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে প্রতিবন্ধী নারীর মা বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার খাগড়াছড়ি সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইন ও ডাকাতির দুইটি মামলা দায়েরের পর পুলিশ নড়েচড়ে উঠে। মামলার এজহারে তারা সংখ্যায় নয় জন ছিলো বলে উল্লেখ করা হয়। প্রায় সমবয়সী ডাকাত দলের সদস্যরা একটি কক্ষে তার বুদ্ধি প্রতিবন্ধী নারী (২৬) কে হাত, পা ও মুখ ওড়না দিয়ে বেঁধে রেখে ধর্ষণ করে। এসময় তারা কানের দুল, আংটিসহ অন্তত ৩ ভরি স্বর্ণালংকার, মোবাইল ফোন সেট নিয়ে গেছে।

শনিবার আদালতে ওই নারীকে এনে ২২ ধারায় জবানবন্দি নেয়া হয়েছে। খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে স্বাস্থ্যগত পরীক্ষা ও চিকিৎসা শেষে ভিকটিম বাড়ি ফিরে গেছেন বলে হাসপাতাল সূত্র জানিয়েছে। হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক (আরএমও) ডা. পূর্ন জীবন চাকমা জানান, ভিকটিম শারীরিকভাবে বেশ দুর্বল ছিলেন। চিকিৎসার পর শংকামুক্ত হয়েছেন।

এ ব্যাপারে খাগড়াছড়ি সদর থানার ওসি আব্দুর রশীদ জানিয়েছেন, আটককৃতদের মধ্যে সকলকে আপাতত: সন্দেহভাজন হিসেবেই দেখা হচ্ছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বেশ কয়েকজনের জড়িত থাকার সত্যতা পাওয়া গেছে। তাদেরকে নিয়ে এখনো অভিযান চলছে। শিগগির ঘটনার সাথে জড়িত নয় জনকেই আটক করে আদালতে প্রেরণ করা হবে।

খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ আব্দুল আজিজ বলেন, পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাটি গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত অব্যাহত রেখেছেন। মামলায় আমাদের সন্তোষজনক অগ্রগতি রয়েছে। এর সাথে জরিত আসামিদের গ্রেফতারে একাধিক টিম মাঠে রয়েছে। সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে।

পাঠকের মতামত: