কক্সবাজার, শুক্রবার, ২০ নভেম্বর ২০২০

গরু চুরির অভিযোগ: সেই মা-মেয়ের জামিন

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার হারবাংয়ের আলোচিত গরু চুরির মিথ্যা অপবাদে নির্যাতনের শিকার মা-মেয়েকে জামিন দিয়েছে চকরিয়ার সিনিয়র জুড়িশিায়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত।

সোমবার (২৪ আগষ্ট) সকালে উক্ত জামিন শুনানি অনুষ্টিত হয়। আদালতের বিজ্ঞ বিচারক রাজিব কুমার দেব তাদের জামিন মনজুর করেন।

জামিন প্রাপ্তরা হল-পারভিন (৪০)স্বামী মৃত: আবুল কালাম, সেলিনা আক্তার সেলি (২৮) রেজিনা আক্তার (২৩) পিতা মৃত-আবুল কালাম সর্ব সাং শান্তির হাট কুসুমপুর শহীদের কলোনী ১নং ওয়ার্ড, পটিয়া ৬নং ইউনিয়ন পরিষদ চট্টগ্রাম।

অন্য দুই জনের জামিন না মঞ্জুর করে জেলহাজতে প্রেরণ করেন। এরা হল মো. চুট্রু (২৭) পিতা: দেলোয়ার হোসেন সাং বারবাকিয়া ৩নং ওয়ার্ড বারবাকিয়া ইউনিয়ন পরিষদ পেকুয়া, কক্সবাজার। মো. এমরান (২১)।

চকরিয়া আইনজীবি সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ওমর ফারুক বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, রোববার সন্ধ্যায় ঘটনাটি তুলে ধরে চকরিয়া জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক রাজিব কুমার দেবের আদালতে আসামিদের জামিনের জন্য প্রার্থনা করেন অ্যাডভোকেট ইলিয়াছ আরিফের নেতৃত্বে আইনজীবিরা। আদালতের বিজ্ঞ বিচারক রাজিব কুমার দেব আসামিদের আদালতে উপস্থিত করার জন্য নির্দেশ দেন। পরে পুলিশ সোমবার সকালে মা পারভীন আক্তার এবং মেয়ে সেলিনা আক্তার ও রোজিনা আক্তারকে আদালতে উপস্থিত করেন। এ সময় আদালত মা-মেয়েসহ তিনজনকে জামিন দেন। অন্য দুই আসামির জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার চকরিয়া উপজেলার হারবাং ইউনিয়নে গরু চুরির অভিযোগে মা-মেয়েসহ পাঁচজনকে রশি দিয়ে বেঁধে নির্যাতন করে উৎসবে মেতে উঠে চেয়ারম্যান লোকজন ও স্থানীয়রা। পরে ইউপির চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলাম মিরানের নির্দেশে তাদের রশি দিয়ে বেঁধে প্রকাশ্যে সড়কে ঘুরিয়ে ইউপি কার্যালয়ে নিয়ে এসে দ্বিতীয় দফায় মারধর ও নির্যাতন করেন। এতে তারা অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে পুলিশ চকরিয়া থানায় মামলা (নং ২১, তারিখ ২১/০৮/২০২০) দিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করেন।

পাঠকের মতামত: