কক্সবাজার, শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০

গাছে গাছে পাখির বাসা বাঁধলেন জেলা প্রশাসক

প্রাণ-প্রকৃতির প্রতি অকৃত্রিম ভালবাসা ও পাখির প্রেমে নিজের বাংলোর গাছে গাছে পাখির বাসা বাঁধলেন কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন। রোববার সকালে নিজের বাংলোতে পাখির বাসা স্থাপন কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন তিনি।

পরিবেশ বিষয়ক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘এনভায়রনমেন্ট পিপল’ কক্সবাজারে ‘গাছে গাছে নিশ্চিত করি পাখির নিরাপদ আবাস’ শ্লোগানে পাখির ১০ হাজার বাসা স্থাপনের কার্যক্রম শুরু করে।

‘এনভায়রনমেন্ট পিপল’ এর প্রধান নির্বাহী রাশেদুল মজিদ বলেন, সাগর-নদী-ঝর্ণা-পাহাড়-গাছগাছালি সমৃদ্ধ প্রকৃতির অপরূপ কক্সবাজারে আগে গাছে গাছে পাখির বিচরণ ছিল দেখার মতো। কিন্তু নানা কারণে সেই সব পাখি এখন আর দেখা যায় না। যার কারণে পাখির সংখ্যা বাড়ানো ও বিলুপ্তপ্রায় পাখি ফিরিয়ে আনতে গাছে গাছে পাখির নিরাপদ বাসা নিশ্চিত করতে কাজ করছি। পর্যায়ক্রমে পুরো কক্সবাজারের সরকারি-বেসরকারি অফিস-আদালত, বাসস্থান, মসজিদ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কবরস্থান, বাগানবাড়ি, রাস্তার পাশের গাছে গাছে তা ছড়িয়ে দেয়া হবে। এসব পাখির বাসা রক্ষণাবেক্ষণ এবং পাখি শিকার বন্ধেও আমরা কাজ করবো।

জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, পরিবেশ প্রকৃতি রক্ষায় পাখির ভূমিকা অপরিসীম। পরিবেশ প্রকৃতির জন্য কক্সবাজার এক অনবদ্য ভাণ্ডার। কিন্তু নানা কারণে পাখির সংখ্যা কমে যাচ্ছে। পাখির প্রতি ভালবাসার অংশ হিসেবে ‘এনভায়রনমেন্ট পিপল’ এর এই উদ্যোগ কক্সবাজারকে পাখির অভয়ারণ্যে পরিণত করবে বলে আশা রাখছি। এমন সৃষ্টিশীল কাজে জেলা প্রশাসন সবসময় পাশে থাকবে বলেও জানান জেলা প্রশাসক।

পাখির বাসা স্থাপন কার্যক্রম উদ্বোধনে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আশরাফুল আফসার, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. শাজাহান আলী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. মাসুদুর রহমান মোল্লা, সহকারি কমিশনার (এনডিসি) মাখন চন্দ্র সূত্রধর, সহকারি কমিশনার মো. জোবায়ের হাবিব, সহকারি কমিশনার সৈয়দ মুরাদ ইসলাম, ‘এনভায়রনমেন্ট পিপল’ এর প্রধান নির্বাহী রাশেদুল মজিদ, ‘এনভায়রনমেন্ট পিপল’ এর স্বেচ্ছাসেবক যথাক্রমে মুহাম্মদ হোসাইন, ওসমান গণি, আরফাতুল মজিদ, সিরাজুল ইসলাম, সাদ্দাম হোসেন, তানভীরুল মিরাজ রিপন, মো. নুরুল হোসাইন, শেখ কামাল, মোহাম্মদ মাসুদ রানা, মুহাম্মদ শাহজাহান, আয়াছুল আলম সিফাত প্রমুখ।

পাঠকের মতামত: