কক্সবাজার, সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০

ঘূর্ণিঝড় “আম্ফান” এর আগে সাগরে অদ্ভুত ফেনা

ভারতের উপকূলে আছড়ে পড়তে চলেছে ঘূর্ণিঝড় “আম্ফান”। তার আগে সৈকতে দেখা মিলেছে অদ্ভুত ফেনা। দূর থেকে যা দেখলে মনে হবে বরফ পড়ে আছে। কিন্তু একটু মনোযোগ দিয়ে সামনে গিয়ে দেখলে বোঝা যাবে ওগুলো বরফ নয়, আসলে সমুদ্রের ফেনা। সম্প্রতি ভারতের দিধার সমুদ্র সৈকতে এই দৃশ্য দেখা গেছে। ঘূর্ণিঝড়ের সঙ্গে এই ফেনার কোনও সম্পর্ক আছে কি না বা এটা কোনও অশনিসঙ্কেত কি না, তা নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে উপকূলবর্তী স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে। এর আগে দিঘার সমুদ্রে এত সাদা সাদা সাবানের মতো ফেনা দেখিনি কেউ। রীতি মতো অবাক লাগছে সবার। সমুদ্র বিজ্ঞানী আনন্দদেব মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, এই ঘটনা একেবারেই স্বাভাবিক। এ নিয়ে ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই।

তিনি বলেন, লকডাউনের ফলে সমুদ্র এখন অনেকটা দূষণমুক্ত। আগে দূষণের জন্য সমুদ্রের তলদেশের সেডিমেন্ট সমুদ্রের জলের তলার দিকেই থাকত। কিন্তু এখন দূষণ না থাকায় সেই সব উপাদান জলের উপরের স্তরের দিকে চলে আসছে। আর আম্পানের প্রভাবে সমুদ্রের উপরে বাতাসের গতিবেগ এখন অনেক বেড়েছে। যার ফলে সেই বাতাসের ধাক্কায় সমুদ্রের পানিতে উৎপন্ন হচ্ছে ফেনা। যা আছড়ে পড়ছে উপকূলে। দিঘা অ্যাকুইরিয়ামের কর্মকর্তা ও সমুদ্রবিজ্ঞানী প্রসাদচন্দ্র টুডু বলেন, এটা স্বাভাবিক ঘটনা। আগে সমুদ্রের ঢেউ বা রোলিং কম ছিল। তাই ফেনা কম উৎপন্ন হত। এখন সমুদ্রের জলের সার্কুলেশন অনেক বেড়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের জন্য বেড়েছে সমুদ্রের উপরে বাতাসের গতিবেগ। তাই অনেক বেশি ফেনা বেড়েছে।

পাঠকের মতামত: