কক্সবাজার, বৃহস্পতিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২০

চট্টগ্রামে দুই মেয়ের লাশের সঙ্গে উদ্ধার অচেতন বাবার মৃত্যু

চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার কাশিয়াইশ ইউনিয়নের ভান্ডারগাঁও এলাকায় বাড়ি থেকে দুই কিশোরীর লাশের সঙ্গে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা মুকুন্দ বড়ুয়াও মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার সকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

এর আগে গত বুধবার ভোরে কাশিয়াইশ ইউনিয়নের ভান্ডারগাঁও এলাকায় বাড়ি  থেকে পুলিশ মুকুন্দ বড়য়ার মেয়ে টুকু বড়ুয়া (১৪) ও নিশু বড়ুয়া (১০) নামে দুই কিশোরীর লাশ উদ্ধার করা করেছে পটিয়া থানার পুলিশ। দুই কিশোরী স্থানীয় একটি স্কুলের অষ্টম ও চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী।

পটিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. বোরহান উদ্দীন বলেন, ‘মুকুন্দ বড়ুয়াকে উদ্ধারের পর থেকে আর তার চেতনা ফেরেনি। ভোরে তিনি হাসপাতালে মারা যান। তার মৃত্যুর কারণে দুই মেয়ের মৃত্যুর কারণসহ ঘটনার বিষয়ে তার কোনো বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

তবে পুলিশের ধারণা, ‘হতাশা থেকে’ দুই মেয়েকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে মুকুন্দও আত্মহত্যার চেষ্টা করেন।

কক্সবাজারের চকরিয়ার বাসিন্দা মুকুন্দ বড়ুয়া জাহাজে চাকরি করতেন। চার বছর আগে স্ত্রী মারা যাওয়ার পর তার দুই মেয়ে পটিয়ায় মামার বাড়িতে থাকতেন। লকডাউনের পর চাকরি থেকে এসে মুকুন্দও শ্বশুর বাড়িতে উঠেন। গত চার বছর আগে তাঁর স্ত্রী ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

পাঠকের মতামত: