কক্সবাজার, বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০

টেকনাফে পৃথক অভিযানে ১১ হাজার ইয়াবা উদ্ধার

কক্সবাজারের টেকনাফে বিজিবি ও র‌্যার পৃথক অভিযান চালিয়ে ১১ হাজার ৩৭৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় এক রোহিঙ্গা যুবককে আটক করেছে র‌্যাব।  মঙ্গলবার রাতে উপজেলার সদরের বরইতুলী ক্যাম্পের সামনে থেকে ও জাদিমুড়া কবর স্থান থেকে ইয়াবাগুলো উদ্ধার করা হয়। আটক মাদক ব্যবসায়ী হলেন হ্নীলা ইউনিয়নের নয়াপাড়া মুচনী রেজিস্ট্রার ক্যাম্পের সি ব্লকের বাসিন্দা মোহাম্মদ ইসমাইলের ছেলে মো. সাদ্দাম হোসেন (২৩)।

টেকনাফ ২ বিজিবি ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লে. কর্নেল মোহাম্মদ ফয়সল হাসান খান বলেন, হ্নীলা ইউপি জাদিমোড়া কবরস্থানে ইয়াবা পাচারের উদ্দেশ্য মজুদ রেখেছে।

এমন তথ্যের ভিত্তিতে দমদমিয়া বিওপি একটি বিশেষ টহলদল ওই এলাকায় অভিযানে যায়। কবরস্থান তল্লাশি করে ঝোপের ভিতর একটি প্লাস্টিকের বালটি দেখতে পায়। পরে প্লাস্টিকের বালতি খুলে গণনা করে ৯ হাজার ৫৮৬ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করতে সক্ষম হয়।

এ সময় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি। তিনি আরো বলেন, উদ্ধারকৃত ইয়াবাগুলো ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে, যা পরবর্তী উদ্ধর্তন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রতিনিধি ও স্থানীয় গণমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে।

অপরদিকে একইদিনে র‌্যাব-১৫ কক্সবাজার ক্যাম্পের সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এএসপি আবদুল্লাহ মোহাম্মদ শেখ সাদী বলেন, বরইতুলী র‌্যাব ক্যাম্পের সামনে চেকপোস্ট বসিয়ে বিভিন্ন গাড়ি তল্লাশির সময় সন্দেহভাজন একটি সিএনজি থামালে গাড়ি থেকে নেমে দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় এক রোহিঙ্গা যুবককে আটক করা হয়।

এ সময় তার দেহ তল্লাশি করে এক হাজার ৭৯০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। এর আনুমানিক মূল্য ৮ লাখ ৯৫ হাজার টাকা।

আটককৃত হলেন হ্নীলা ইউপি নয়াপাড়া মুচনী রেজিস্ট্রার ক্যাম্পের সি ব্লকের বাসিন্দা মোহাম্মদ ইসমাইলের  ছেলে মো. সাদ্দাম হোসেন (২৩)।  উদ্ধার ইয়াবাসহ আটকের বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলার পর টেকনাফ মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

পাঠকের মতামত: