কক্সবাজার, মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২

ব্ল্যাকমেইল করে টাকা আদায়, ৪ সাংবাদিকসহ আটক ৭

কুষ্টিয়ায় দুই যুবককে অনৈতিক কাজের প্রলোভন দেখিয়ে বাড়িতে ডেকে নিয়ে জিম্মি করে চাঁদা আদায়ের অভিযোগে সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

মঙ্গলবার দুপুরে কুষ্টিয়া র‌্যাব-১২ সিপিসি-১ ক্যাম্পের সম্মেলন কক্ষে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে কোম্পানি কমান্ডার স্কোয়াড্রন লিডার মোহাম্মদ ইলিয়াস খান এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, সোমবার কুষ্টিয়া সদরের জগতি এলাকার একটি বাড়িতে দুই যুবককে অনৈতিক কাজের প্রলোভন দেখিয়ে বাড়িতে ডেকে নিয়ে জিম্মি করে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ আসে। অভিযোগের ভিত্তিতে এদিন জগতি এলাকার ঐ বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে জগতি গ্রামের মৃত আবদুর রশিদের মেয়ে রেহেনা আক্তার ফরিদা খাতুন ওরফে বুড়ি (৪০), চৌড়হাস ফুলতলা এলাকার মৃত জাফর আলীর মেয়ে কুসুম খাতুন কাজল (২৫), একই এলাকার আশরাফ আলীর ছেলে তরিকুল ইসলাম (৩০), মৃতঃ আব্দুর রশিদের ছেলে রাসেল আহমেদ (৩০), দৌলতপুর উপজেলার আড়িয়া ইউপির কালিদাসপুর আইয়ুব মালিথার ছেলে আলেক চাঁদ (২৪), কুষ্টিয়া ডিসি কোর্ট এলাকার মৃত রফিকুল ইসলামের ছেলে আবির হাসান স্বাধীন (১৯) এবং জগতি এলাকার ঝন্টু শেখের ছেলে পারভেজ শেখকে ( ২২ ) আটক করতে সক্ষম হই। এসময় ওই বাড়ি হতে জিম্মিকৃত দুই যুবক তামিমুজ্জামান চৌধুরী (৩০) ও মারজান হোসেন মিয়াকে (৩৯) উদ্ধার করা হয়।

পরে জিজ্ঞাসাবাদে বাড়ির মালিক রেহেনা আক্তার ও কুসুম খাতুন কাজল স্বীকার করেন যে, উঠতি বয়সের যুবকদের বাড়িতে ডেকে অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও ধারণ করে তা পরিবারের সদস্যদের কাছে পাঠানো এবং ইন্টারনেটে প্রকাশের ভয় দেখিয়ে অর্থ আদায়ের উদ্দেশ্যে তারা এ ধরণের কাজ করতো। তাদের এ কাজে সহায়তা করতো এলাকার কিছু স্থানীয় সাংবাদিক।

আটককৃত রেহেনা আক্তার প্রথমে মোবাইল ফোনে যুবকদের বাড়িতে ডেকে এনে আগে থেকে বাড়িতে অবস্থান করা পতিতার সাথে একটি কক্ষে ঢুকিয়ে দিত। কিছুক্ষণের মধ্যে সাংবাদিক নামধারী কয়েকজন যুবক সেই কক্ষে ঢুকে তাদের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও ধারণ করতো। যুবকরা বাধা দিতে চাইলে জোরপূর্বক ভয়ভীতি দেখিয়ে তারা এ ধরণের ভিডিও ধারণ করতো।

গ্রেপ্তারকৃত তরিকুল, রাসেল, আলেক চাঁদ ও স্বাধীন স্থানীয় দৈনিক সময়ের দিগন্ত ও বিজয়ের বাণী পত্রিকায় সাংবাদিকতার কাজ করে। তাদের বিরুদ্ধে সাংবাদিকতার নাম ভাঙিয়ে এ ধরণের চাঁদাবাজির অনেক অভিযোগ রয়েছে। রেহেনা আক্তার গত কয়েক বছর যাবত নিজ বাড়িতে এ ধরণের অনৈতিক কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন বলে এলাকাবাসী জানিয়েছে।

স্কোয়াড্রন লিডার কোম্পানি কমান্ডার মোহাম্মদ ইলিয়াস খান বলেন, ধৃত আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে কুষ্টিয়া মডেল থানায় প্রেরণ করা হয়েছে।

পাঠকের মতামত: