কক্সবাজার, রোববার, ২৬ মে ২০২৪

লাল পাহাড়ে অভিযান, আরসার প্রধান সমন্বয়কসহ ২ জন গ্রেপ্তার

রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন লাল পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে আরসার আস্তানা থেকে বাংলাদেশে আরসার অন্যতম প্রধান সমন্বয়ক ও কমান্ডার মোঃ শাহনুর প্রকাশ মাস্টার সলিম’সহ দুইজন আরসা সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তারের কথা জানিয়েছে র‍্যাব।

এ সময় তাদের কাছ থেকে ৫টি গ্রেনেড, ৩টি রাইফেল গ্রেনেড, ১০টি দেশীয় তৈরী হ্যান্ড গ্রেনেড, ১৩টি ককটেল, ১টি বিদেশী রিভলবার, ৯ রাউন্ড 9MM পিস্তলের এ্যামুনিশন, ১টি এলজি এবং ৩টি ১২ বোর কার্তুজ উদ্ধার করা হয়।

র‍্যাব -১৫ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সিনিয়র সহকারি পরিচালক (ল’ এন্ড মিডিয়া) মোঃ আবু সালাম চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানান।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, কক্সবাজারের উখিয়ার ১৫নং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সৈয়দুল আবেরার ছেলে মোঃ শাহনুর প্রকাশ মাস্টার সলিম (৩৮)।বালুখালী ৮/ডব্লিউ রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ব্লক-এ/২৩ এর মোহাম্মদ নুরের ছেলে মো.রিয়াজ।

র‍্যাব জানায়, গ্রেফতারকৃত মোঃ শাহনুর প্রকাশ মাস্টার সলিম একজন জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত পার্শ্ববর্তী দেশের নাগরিক। ২০১৭ সালের পার্শ্ববর্তী দেশ হতে অবৈধভাবে বাংলাদেশে প্রবেশ এবং ক্যাম্প-১৫ এ বসবাস শুরু করে। সে পার্শ্ববর্তী দেশে থাকাকালীন সেখানকার জোন কমান্ডারের দায়িত্বে নিয়োজিত ছিল। এছাড়াও আরসা প্রধান আতাউল্লাহ আবু আম্মার জুনুনির দেহরক্ষী হিসেবে দুই মাস দায়িত্ব পালন করে। বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শরণার্থী হিসেবে ২০১৭ সালে আসার পর মৌলভী আকিজের মাধ্যমে আরসায় পুনরায় যোগদান করে।

র‍্যাব আরও জানায়, গ্রেফতারকৃত মোঃ রিয়াজ ২০১৭ সালে বাস্তুচ্যুত হয়ে পার্শ্ববর্তী দেশ হতে অবৈধভাবে বাংলাদেশে প্রবেশ করে এবং বসবাস শুরু করে। সে ২০১৮ সালে মৌলভী মোঃ ইব্রাহিমের মাধ্যমে আরসায় যোগদান এবং প্রাথমিকভাবে আরসার হয়ে পাহারাদারের দায়িত্ব পালন করে। এ সময় সে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীসহ আরসা বিরোধী সংগঠনের সদস্যদের গতিবিধি লক্ষ্য করতো। পরবর্তীতে ২০১৯ সালের মাঝামাঝি সময়ে পুনরায় পার্শ্ববর্তী দেশে ফিরে যায় এবং সেখানে ৬ মাসের সামরিক বিভিন্ন বিষয়াদিসহ মাইন, বোমা, হাত বোমা ও বিস্ফোরক তৈরীতে প্রশিক্ষণ লাভ করে। পরবর্তীতে পুনরায় বাংলাদেশে প্রবেশ করে গ্রেফতারকৃত মাস্টার সলিমের অন্যতম সহযোগী হয়ে বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণ করতো বলে জানা যায়। তার বিরুদ্ধে ১টি হত্যা মামলা মামলা রয়েছে বলে জানায়।

গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

পাঠকের মতামত: