কক্সবাজার, বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১

সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ নেওয়া হবে ৩২ হাজার কোটি টাকা

বাজেট ঘাটতি মেটাতে আগামী ২০২১-২০২২ অর্থ বছররে বাজেটে সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা বাড়ানো হচ্ছে। নতুন বাজেটে সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ধরা হচ্ছে ৩২ হাজার কোটি টাকা।

করোনা মহামাররি মাঝে মানুষের আয় কমলেও বাড়ছে সঞ্চয় প্রবণতা। গ্রাহকরা সঞ্চয়ের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য মাধ্যম হিসেবে বিবেচনা করে থাকেন সঞ্চয়পত্রকে। ফলে সঞ্চয়পত্র বিক্রি বাড়ছে, আর সে কারণে বাজেট ঘাটতি মেটাতে সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ নেওয়াও বাড়বে। অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের বাজেট প্রণয়নের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা বলেন, সরকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি কমাতে চায়। এই খাত থেকে প্রতি অর্থ বছরইে বড় অংকের ঋণ নিতে হচ্ছে। করোনার কারণে আগামী অর্থ বছরের বাজেটে বৈদেশিক ঋণ সহায়তা কতোটা পাওয়া যাবে তা অনেকটাই অনিশ্চিত। আর এ কারণে আগামী বাজেটেও ঘাটতি মেটাতে সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ নিতে হবে।

তত্ত্বাবধায়ক সরকাররে সাবেক অর্থ উপদষ্টো এবং অর্থনীতবিদ মির্জ্জা আজিজু ইসলাম বলেন, করোনায় মানুষের সঞ্চয়ের আগ্রহ বেড়েছে। কিন্তু ব্যাংকে সুদের হার কম। শেয়ারবাজারে বিনিয়োগে ঝুঁকি আছে। তাই নিরাপদ বিবেচনায় মানুষ সঞ্চয়পত্রে ঝুঁকছে। আবার সরকাররেও ঘাটতি মেটাতে অর্থের প্রয়োজন। রাজস্ব আহরণ কম। তাই ঘাটতি মেটাতে ব্যাংক ও সঞ্চয়পত্রই ভরসা। তাই হয়তো আগামী বাজেটে সরকার এ খাত থেকে ঋণের লক্ষ্যমাত্রা বাড়াচ্ছে।

সূত্র জানায়, চলতি ২০২০-২০২১ অর্থ বছরে সরকার সঞ্চয়পত্র বিক্রির লক্ষ্যমাত্রা ধরেছে ৮৬ হাজার ৬৮৫ কোটি টাকা। আর ঋণের লক্ষ্যমাত্রা ধরেছে ২০ হাজার কোটি টাকা। তবে চলতি অর্থ বছরের প্রথম আট মাসইে (জুলাই-ফেব্রুয়ারি) সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে ৭৫ হাজার ১০৩ কোটি টাকা। এটি বিগত পুরো অর্থ বছরে সঞ্চয়পত্র বিক্রির চেয়েও সাত হাজার ৯৭৫ কোটি ৬৫ লাখ টাকা বা ১২ শতাংশ বেশি। গত অর্থ বছরে সঞ্চয়পত্র বিক্রির পরিমাণ ছিল ৬৭ হাজার ১২৭ কোটি ৭৫ লাখ টাকা।

সূত্র জানায়, সঞ্চয়পত্র যতো বেশি বিক্রি হয় সরকারের ঋণও এই খাত থেকে ততো বাড়ে। কারণ, বিক্রি হওয়া সঞ্চয়পত্ররে সুদ-আসল পরিশোধের পর প্রতি মাসে যে অর্থ অবশিষ্ট থাকে তাকে নিট সঞ্চয়পত্র বিক্রি বলা হয়। অর্থনীতির পরিভাষায় নিট সঞ্চয়পত্র বিক্রিকে সরকারের ঋণ হিসেবে ধরা হয়। ধারণা করা হয়েছিলে, করোনা মহামারিতে সঞ্চয়পত্র বিক্রি কমবে। সেই সঙ্গে এই খাত থেকে সরকাররে ঋণের বোঝাও কমে আসবে। কিন্তু হয়েছে উল্টো।

সূত্র জানায়, ব্যাংকগুলোতে আমানতের বিপরীতে সুদের হার উল্লেখযোগ্যভাবে কমছে। ফলে দীর্ঘ মেয়াদে ব্যাংকে টাকা রাখার পরিবর্তে সঞ্চয়পত্রে ঝুঁকছে মানুষ। এসব বিষয় আমলে নিয়ে আগামী অর্থ বছরে এ খাত থেকে ঋণের লক্ষ্যমাত্রা বাড়াচ্ছে সরকার। আগামী বাজেটে সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হচ্ছে ৩২ হাজার কোটি টাকা। চলতি অর্থ বছররে মূল বাজেটে সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা আছে ২০ হাজার কোটি টাকা।

তবে সংশোধিত বাজেটে তা বাড়িয়ে ৩০ হাজার কোটি টাকা করা হয়। সংশোধিত হিসাবে আগামী বাজেটে এ খাত থেকে ঋণের লক্ষ্যমাত্রা বাড়ছে দুই হাজার কোটি টাকা।

পাঠকের মতামত: