কক্সবাজার, মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০

সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি যুবক নিহত

লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার শমসেরনগর সীমান্তে গরু আনতে গিয়ে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে মিজানুর রহমান (২০) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। তিনি উপজেলার বুড়িমারী ইউনিয়নের মুংলীবাড়ী সীমান্তের নাসিম উদ্দিন ভুট্টুর ছেলে। গতকাল বুধবার গভীর রাতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতের পরিবার, রংপুর-৬১ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ব্যাটালিয়ন ও পাটগ্রাম থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গতকাল বুধবার দিবাগত রাত আনুমানিক সাড়ে ৩টার দিকে পাটগ্রাম উপজেলার শমসেরনগর সীমান্ত পথে ভারত থেকে গরু আনতে গিয়ে মিজানুর গুলিবিদ্ধ হন। এ সময় সহযোগীরা তাকে উদ্ধার করে পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

রংপুর-৬১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের শমসেরনগর কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার সুলতান হোসেন বলেন, ‘মিজানুর রহমানসহ পাঁচ-সাতজনের একটি দল গরু আনার জন্য পূর্বজগতবেড় এলাকার শমসেরনগর সীমান্তে যায়। বিষয়টি টের পেয়ে ভারতীয় ১৪০ বিএসএফের চুয়াংগারখাতা ক্যাম্পের টহল দলের সদস্যরা গুলি করলে তার মৃত্যু হয়। এই ঘটনায় বিজিবির পক্ষ থেকে কড়া প্রতিবাদপত্র দিয়ে বিএসএফকে পতাকা বৈঠকের আহ্বান জানানোর প্রস্তুতি চলছে। মিজানুরের লাশ বর্তমানে পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আছে।’

পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. কালীপ্রসাদ সরকার বলেন, ‘বুধবার রাত ৪টা ২০ মিনিটে কয়েকজন ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ মিজানুরকে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসে। খবর পেয়ে দ্রুত গিয়ে দেখি হাসপাতালে পৌঁছানোর আগেই তার মৃত্যু হয়েছে।’

advertisement
তিনি আরও বলেন, ‘মিজানুর রহমানের মাথার পেছনে গুলি ঢুকে ভেতরেই আছে। এটাকে অক্সিটাল রিজিওন বলে। গুলি ঢুকেছে কিন্তু বের হয়নি। দূর থেকে গুলি করার কারণে সেটি বের হয়ে যায়নি। এতে প্রচুর রক্তক্ষরণের কারণে মৃত্যু হয়েছে। বিষয়টি পাটগ্রাম থানা পুলিশকে অবহিত করা হয়েছে।’

আজ বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পাটগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুমন কুমার মোহন্ত বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘আমরা লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুত করছি। এরপর আইনগত ব্যবস্থা নিয়ে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে লাশের ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হবে।’

পাঠকের মতামত: