কক্সবাজার, মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১

সুদের ভয়াবহতা থেকে বাঁচতে ইসলাম জানুন

হাদিস ১। রাসূলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, সুদের মধ্যে সত্তরটির মত পাপ রয়েছে। তম্মধ্যে সবচেয়ে সহজ পাপটি হচ্ছে নিজ মায়ের সাথে ব্যভিচার করা। (ইবনু মাজাহ্‌ হা/২২৭৪)

হাদিস ২। রাসূলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, তোমরা ধ্বংসকারী সাতটি কাজ থেকে দূরে থাক। তারা বললেন, উহা কি কি হে আল্লাহর রাসূল? তিনি বললেন, আল্লাহর সাথে শির্ক, যাদু, কোন অধিকার ছাড়া কাউকে খুন করা, সুদ খাওয়া, ইয়াতীমের সম্পদ ভক্ষণ করা, যুদ্ধের ময়দান থেকে পলায়ন করা, বিদুষী সতী-সাধী মুমিন নারীদেরকে অপবাদ প্রদান করা। (বুখারী ও মুসলিম)

হাদিস ৩। রাসূলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, জেনে-শুনে এক দিরহাম পরিমাণ সুদ খাওয়া আল্লাহর নিকট ৩৬ জন নারীর সাথে ব্যভিচারের চাইতে অধিক গুনাহের কাজ। (আহমাদ, সিলসিলা ছহীহা হা/ ১০৩৩)

হাদিস ৪। হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা) হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সূদী মহাজন, যে সুদ নেয়, সুদী লেনদেনের সাক্ষীগন এবং সুদের চুক্তি লেখককে অভিশাপ দিয়েছেন। – সহিহ মুসলিম- ১৫৯৭, সুনান ইবনে মাজাহ- ২২৭৭, জামে তিরমিযী-১২০৬, সুনান আবু দাউদ- ৩৩৩৩, মুসনাদ এ আহমাদ- ৩৭২৯, সুনান দারেমী- ২৫৩৫

হাদিস ৫। হযরত আবু হোরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন- মীরাজের রাতে যখন আমরা ৭ম আসমানে পৌঁছলাম, তখন আমি উপরের দিকে বজ্র ও বিদ্যুৎ দেখলাম।। এরপর আমরা এমন এক সম্প্রদায়ের কাছে দিয়ে গেলাম যাদের একেকজনের পেট ঘরের মত ফুলে ঢোল হয়ে ছড়িয়ে আছে।। তাদের পেট সাপ দ্বারা ভর্তি ছিল, সাপগুলোকে বাইরে থেকেই দেখা যাচ্ছিল।আমি জিব্রাইল (আঃ) কে প্রশ্ন করলাম “এরা কারা??”
জিব্রাইল(আঃ) উত্তরে বললেন- “সুদখোর।” – মুসনাদ এ আহমাদ -২/৩৫৩, ইবনে মাজাহ

হাদিস ৬। হযরত আব্দুল্লাহ বিন মাসউদ রাঃ এর পিতা থেকে বর্ণিত। রাসূল সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন-“যে সুদ খায়, যে সুদ খাওয়ায়,তার সাক্ষী যে হয়, আর দলিল যে লিখে তাদের সকলেরই উপর আল্লাহ তায়ালা অভিশাপ করেছেন। – মুসনাদে আহমাদ ৩৮০৯, মুসনাদে আবি ইয়ালা ৪৯৮১

হাদিস ৭। আবূ হুরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, মানুষের জন্য অবশ্যই এমন একটি সময় আসবে যখন প্রত্যেকেই সুদ গ্রহণ করবে। আর কেউ যদি সুদ গ্রহণ না করে তাহলে সুদের ধুলা হলেও তার কাছে পৌছবে”। – আবু দাঊদ, ইবনে মাজাহ

হাদিস ৮। রাসূলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “চার শেণীর লোককে আল্লাহ যুক্তি সঙ্গত কারণেই বেহেশতে প্রবেশ করতে দিবেন না। এমনকি বেহেশতের সুগন্ধও তারা পাবে না। যারা অভ্যাসবশত মদ পান করে, যারা সুদ খায়, যারা ইয়াতীমের সম্পদ অধিকার ছাড়া অন্যায়ভাবে ভোগ করে এবং যারা পিতা-মাতার প্রতি কর্তব্য অবহেলা করে”। -মসতাদরাক আল-হাকিম

পাঠকের মতামত: