কক্সবাজার, শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১

সেন্টমার্টিনে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল বন্ধ

দেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিনে ভরা পর্যটন মৌসুমেও পর্যটকবাহী জাহাজ যেতে পারছে না। সেন্টমার্টিনের জেটি এখনো পুরোপুরি মেরামত না হওয়ায় কিছুটা ঝুঁকি থাকায় আপাতত সেন্টমার্টিনে পর্যটক যাতায়ত বন্ধ রয়েছে।

জেলা প্রশাসকের নির্দেশে গঠিত একটি পরিদর্শন দল সরেজমিনে সেন্টমার্টিনের জেটি ঘাট মেরামত কার্যক্রম পরিদর্শন শেষে এ মতামত জানান।

পরিদর্শন দলের প্রধান অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আমিন আল পারভেজ বলেন, ‘প্রতিনিধি দলের সকল সদস্য সেন্টমার্টিন জেটিঘাট সরেজমিনে পরিদর্শন করে অনেক সমস্যা ও ঝুঁকি উপলব্ধি করেন। পরিদর্শন শেষে সকলে গুরুত্বপূর্ণ মতামত ব্যক্ত করেন। সবাই সেন্টমার্টিনে পর্যটকসেবা বৃদ্ধি ও পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার উপর গুরুত্বারোপ করেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘সেবা দিতে গিয়ে পর্যটকদের ঝুঁকির মুখে ফেলা যাবে না। ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে ভেঙে যাওয়া সেন্টমার্টিনের জেটি এখনো পূর্ণ মেরামত না হওয়ায় কিছুটা ঝুঁকি এখনো রয়ে গেছে। তাই এখন পর্যটকবাহী কোনো জাহাজ সেন্টমার্টিনে যেতে অনুমতি পাচ্ছে না। তবে জেটি মেরামত সম্পূর্ণ করে দ্রুত সময়ে সেন্টমার্টিনে জাহাজ চলাচলে অনুমতি দেওয়া হবে। পর্যটকদের নিরাপত্তার স্বার্থে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’

পরিদর্শন দলের অন্যতম সদস্য অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু সুফিয়ান বলেন, ‘সেন্টমার্টিন দেশের অন্যতম প্রধান আকর্ষনীয় পর্যটন এলাকা হওয়ায় দেশি বিদেশি পর্যটকরা সেন্টমার্টিনে আসতে আগ্রহী বেশি। তাই বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে সেন্টমার্টিনের জেটিঘাটের সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। জেটিঘাটের সমস্যা চিহ্নিত হওয়ায় দ্রুত সময়ে সমাধান হবে।’

এ দলের অন্যান্য সদস্যদের মধ্যে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পারভেজ চৌধুরী, জেলা পুলিশের সহকারি পুলিশ সুপার এসএম রকীব উর রাজা, সহকারী কমিশনার (পর্যটন সেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত) সৈয়দ মুরাদ ইসলাম, এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী আরিফ হোসেন, সাংবাদিক দীপক শর্মা দীপু, ওসি টুরিস্ট (টেকনাফ) অমৃত কুমার দেব, নৌ পুলিশের ইনচার্জ মো. নান্নু মিয়া, টুয়াকের সভাপতি আনোয়ার কামাল, পর্যটন ও পার্বত্য সম্পাদক তৌহিদুল ইসলাম তোহা, পর্যটন শিল্প উদ্যোক্তা বাহাদুর হোসাইন মতামত ব্যক্ত করেন।

পাঠকের মতামত: