কক্সবাজার, শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০

সিনহা হত্যা মামলার চার আসামিকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদ

মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলার চার আসামিকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু হয়েছে। শনিবার (৮ আগস্ট) দুপুর ২টার দিকে কক্সবাজার জেলা কারাগারে পৌঁছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (আইও)।

নির্ধারিত প্রক্রিয়া শেষে আড়াইটা থেকে পুলিশের কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন, আবদুল্লাহ আল মামুন ও এএসআই লিটন মিয়াকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদ করেন তিনি।

কক্সবাজার র‌্যাব-১৫ এর উপ-অধিনায়ক মেজর মেহেদী হাসান সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, চার আসামিকে পৃথকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্তের স্বার্থে জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে ঘটনার ক্লু উদ্ঘাটনের চেষ্টা করা হবে।
কক্সবাজার জেলা কারাগারের সুপার মোকাম্মেল হোসেন জানান, শনিবার (৮ আগস্ট) দুপুর দেড়টার দিকে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত থেকে সিনহা হত্যা মামলার রিমান্ড সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় নথিপত্র জেলা কারাগারে পৌঁছেছে। ফলে কারাফটকে র‌্যাব সদস্যরা চারজন আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছেন।

সাতদিনের রিমান্ডের আদেশপ্রাপ্ত তিন আসামিকে রবিবার র‌্যাব হেফাজতে নিয়ে যাওয়ার কথা রয়েছে।

গত ৬ আগস্ট টেকনাফ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে শুনানি শেষে ওসি প্রদীপ কুমার দাস, ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলী ও এসআই নন্দলাল রক্ষিতের সাত দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন বিচারক মুহাম্মদ হেলাল উদ্দিন। একই সঙ্গে কারাগারে পাঠানো চার আসামিকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন বিচারক।

খুনের ঘটনায় মেজর সিনহার বড়বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস বাদী হয়ে ৫ আগস্ট আদালতে মামলা করেন। মামলায় ওসি প্রদীপ কুমার দাস, ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলীসহ ৯ জনকে আসামি করা হয়। বাদীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে র‍্যাবকে মামলাটির তদন্তভার দেয়া হয়।

এদিকে, রিমান্ডের আদেশ পাওয়া তিন আসামিকে এখনও তদন্তকারী কর্মকর্তার হেফাজতে নেওয়া হয়নি। চারজনের প্রত্যেককে দুদিন করে জিজ্ঞাসাবাদ শেষ হলেই রিমান্ড মঞ্জুর করা তিন আসামিকে কারাগার থেকে তদন্তকারী কর্মকর্তার হেফাজতে নিয়ে রিমান্ড করা হবে।

গত ৩১ জুলাই টেকনাফ বাহারছরা চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে খুন হন সিনহা।

ঘটনা তদন্তে গত ২ আগস্ট চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মো. মিজানুর রহমানকে আহ্বায়ক করে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে দেয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্ত্বা বিভাগ। ৪ আগস্ট থেকে তদন্ত শুরু হয়েছে। সাত কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেবে তদন্ত কমিটি।

পাঠকের মতামত: