কক্সবাজার, শুক্রবার, ২০ নভেম্বর ২০২০

নামের ভুলে বন্দুকযুদ্ধে প্রাণ গেল যুবকের!

“এজাহারের ২ নম্বর আসামি মো. জয়নাল, পিতা আবদুল জলিল পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছেন। তার নিহত হওয়ার সব বিষয় ও কাগজপত্র মামলার কেস ডকেটে (সিডিতে) নোট রাখি। একাধিকবার চিঠি দিয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালকের কাছ থেকে মেডিকেল সার্টিফিকেট (এমসি) সংগ্রহ করেছি।” মারধর, হত্যাচেষ্টা ও চুরির মামলার আসামি বখাটে মো. জয়নালের মারা যাওয়ার বিষয়টি এভাবে চার্জশিটে সুনির্দিষ্টভাবে তুলে ধরেন তদন্ত কর্মকর্তা এসআই দিপংকর চন্দ্র রায়। নিহত হওয়ায় এই আসামিকে মামলা থেকে অব্যাহতি দিতে আবেদন করা হয়। পুলিশের তদন্তের আলোকে আসামিকে মামলা থেকে অব্যাহতিও দেন আদালত।

তবে এর কিছুদিন পরই বখাটে জয়নাল হঠাৎ আদালতে এসে আইনজীবীর মাধ্যমে এ মামলায় হাজিরা দাখিল করে। ফলে মামলাটি অন্যদিকে মোড় নেয়। সামনে আসে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ একজনের জায়গায় অন্যজন মারা যাওয়ার বিষয়টি। আদালত থেকে গত ফেব্রুয়ারিতে এ তথ্য জানার পর এ ব্যাপারে চট্টগ্রামের বায়েজিদে সরেজমিন অনুসন্ধান করা হয়। এতে বের হয়ে আসতে থাকে আসল ঘটনা।

অনুসন্ধানে জানা যায়, পুলিশের ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যে জয়নাল প্রাণ হারিয়েছে, সে আসলে ওই মামলার আসামি নয়। সে দশম শ্রেণির ছাত্র ছিল, পড়ত বায়েজিদে অবস্থিত ভোকেশনাল অ্যান্ড টেক্সটাইল ইনস্টিটিউটে। ফলে অভিযোগ উঠেছে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নাম ভুল করায় নিরপরাধ শিক্ষার্থীকে প্রাণ দিতে হয়েছে। যদিও শিক্ষার্থী ও আসামির নাম এক হলেও তাদের বাবার নাম ভিন্ন ছিল।

নিহত শিক্ষার্থী জয়নালের মা-বাবা, সহপাঠী, শিক্ষক ও প্রতিবেশীরা জানান, বখাটে আসামি জয়নালের জায়গায় পুলিশ শিক্ষার্থী জয়নালকে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মেরে ফেলেছে। চার্জশিটেও উঠে এসেছে সে তথ্য। অনুসন্ধানেও মিলেছে তার সত্যতা। সবাই শিক্ষার্থী জয়নালকে শান্ত ও ভালো ছেলে হিসেবে চিনতেন। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রায় সবাই বলেছেন, জয়নালের মধ্যে কোনোদিন খারাপ কিছু নজরে আসেনি। এ রকম একজন শিক্ষার্থী নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সামনের মাঠেই গভীর রাতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়। গত বছরের ১ সেপ্টেম্বর রাত ১টায় শিক্ষার্থী জয়নাল ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মারা যাওয়ার পর পুলিশ মিডিয়াকে বলেছিল- সে মারধরসহ বেশ কয়েকটি মামলার আসামি ছিল। তার বাবার নাম আবদুল জলিল। সে অনুযায়ী তদন্ত শেষ করে এসআই দিপংকর চন্দ্র রায় মামলার আসামি থেকে বখাটে জয়নালের নাম বাদ দিয়ে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। তবে এরপর তিন দফা শুনানিতে আদালতে হাজিরা দেয় আসল আসামি জয়নাল।
‘বন্দুকযুদ্ধে’ প্রাণ হারানো শিক্ষার্থী মো. জয়নাল নোয়াখালীর মাইজদীর বাসিন্দা নুরুল ইসলামের ছেলে। মামলার আসল আসামি বখাটে মো. জয়নাল চট্টগ্রাম নগরীর রৌফাবাদ পাহাড়িকা আবাসিক এলাকার আবদুল জলিলের ছেলে।
এ ব্যাপারে আসল আসামি জয়নাল সমকালকে জানায়, আরেক জয়নালকে মেরে ফেলার বিষয়টি জানতে পেরে ভয়ে তাড়াতাড়ি ওই মামলায় আদালতে হাজিরা দিয়ে যাচ্ছে।
এ মামলার নথিতে আসল আসামি মো. জয়নালের নিয়মিত হাজিরা দেওয়ার আবেদনগুলো সংযুক্ত রয়েছে। বর্তমানে মামলাটি চট্টগ্রাম চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে বিচারাধীন।
এ আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী চট্টগ্রাম মহানগরের অতিরিক্ত পিপি আবিদ হোসেন সমকালকে বলেন, মামলার ২ নম্বর আসামি আবদুল জলিলের ছেলে মো. জয়নালের ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মারা যাওয়ার তথ্য চার্জশিটে তুলে ধরা হয়েছে। এ সংক্রান্ত কাগজপত্রও সিডিতে সংরক্ষণ করা হয়েছে। তবে এখন দেখছি, ‘মৃত’ আসামি জয়নাল আদালতে হাজিরা দিচ্ছে। তাহলে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এ মামলার আসামি জয়নাল মারা যায়নি। স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে, ‘বন্দুকযুদ্ধে’ অন্যজন মারা গেছে।
অ্যাডভোকেট আবিদ আরও বলেন, আগামী ৬ অক্টোবর মামলার পরবর্তী শুনানির দিন আদালতে বিস্তারিত তুলে ধরা হবে। একই সঙ্গে রাষ্ট্রপক্ষ থেকে এ ‘বন্দুকযুদ্ধের’ ঘটনাটি আসলে কী ছিল, তা বের করতে জুডিশিয়াল তদন্তের জন্য আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হবে।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই দিপংকর চন্দ্র রায় বলেন, যখন এ মামলার তদন্তভার নিই, তখন বায়েজিদ থানায় নতুন যোগদান করেছিলাম। ভুল করে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মারা যাওয়া জয়নালকে এ মামলার আসামি জয়নাল ভেবে চার্জশিট থেকে বাদ দিয়েছি। তাহলে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মারা গেল কোন জয়নাল? জবাবে এসআই দাবি করেন, ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মারা যাওয়া জয়নাল খুবই বেপরোয়া প্রকৃতির তরুণ ছিল। তার বিরুদ্ধে দু-তিনটি মামলা রয়েছে বলে শুনেছি। সে শিক্ষার্থী কিনা জানা নেই।
সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আকতার কবির চৌধুরী বলেন, একজন শিক্ষার্থীকে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ হত্যার অভিযোগটি গুরুতর বিষয়। এই মৃত্যু কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। এটি নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত হওয়া উচিত। তাহলেই বের হয়ে আসবে প্রকৃত ঘটনা।
কাউন্সিলরের সংশ্নিষ্টতার অভিযোগ :বায়েজিদ থানার আমিন জুট মিল এলাকাটি চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের ৭ নম্বর পশ্চিম ষোলোশহর ওয়ার্ডের ভেতর। এ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ছিলেন মোবারক আলী। তার সঙ্গে স্থানীয় আরেক আওয়ামী লীগ নেতা রাশেদুল ইসলাম বাবুর রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব রয়েছে। ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মারা যাওয়া শিক্ষার্থী জয়নাল আওয়ামী লীগ নেতা বাবুর অনুসারী ছাত্রলীগ কর্মী ছিল। বাবুর ডাকে বিভিন্ন সভা-সমাবেশে অন্যদের সঙ্গে হাজির থাকত সে। এটিই কাল হয়েছে বলে ধারণা করছে তার পরিবার ও সহপাঠীরা। যেদিন শিক্ষার্থী জয়নালকে টেক্সটাইল ইনস্টিটিউটের সামনের মাঠে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মারা হয়, তার আগের দিন আমিন জুট মিল এলাকায় মারামারি হয়। সেখানে জয়নালও হাজির ছিল জানিয়ে তার বাসায় যায় কাউন্সিলর মোবারক আলীর পিএস পরিচয় দেওয়া সামসু ও তার দল। জয়নালের সঙ্গে কথা বলে তারা ফিরে যায়। তাকে বাসা থেকে বের হতে নিষেধ করা হয়েছিল তখন।
তারপর রাত ১টার দিকে পুলিশের সাদা ও পোশাকধারী একটি দল গিয়ে বাসা থেকে তুলে নিয়ে যায় জয়নালকে।
তার বাবা নুরুল ইসলাম অভিযোগ করেন, পুলিশ বাসা থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে পরদিন ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ছেলেকে মেরে ফেলেছে। ছেলেকে ধরে নিয়ে যাওয়ার পর কাউন্সিলর মোবারক আলীর কাছে গিয়ে তার হাতে-পায়ে ধরেছি। তবুও মন গলেনি। কাউন্সিলর দাবি করেন, ছেলের নামে নাকি বহু অভিযোগ। তার জন্য কিছু করতে পারবেন না। নুরুল ইসলামের অভিযোগ, পিএস সামসু বাসা থেকে যাওয়ার পরই পুলিশ তার ছেলেকে নিয়ে যায়। মোবারকের কথা ছাড়া কিছুই হয়নি। তারা গরিব মানুষ, তাই আল্লাহর কাছে বিচার দিয়ে চুপ আছেন।
অভিযোগের বিষয়ে কাউন্সিলর মোবারক আলীর ফোনে একাধিকবার কল দিলেও সাড়া দেননি। আওয়ামী লীগ নেতা রাশেদুল ইসলাম বাবু বলেন, এ বিষয়টি নিয়ে কোনো কথা বলতে চাই না। কথা বললে ফের বিপদে পড়ব।
তিন বোনের এক ভাই ছিল শিক্ষার্থী জয়নাল :সুতা শ্রমিকের কাজ করেন নুরুল ইসলাম। তার সঙ্গে স্ত্রী জোহরা বেগমও কাজ করেন। তাদের তিন মেয়ে ও একমাত্র ছেলে ছিল জয়নাল। পরিবারের আশা ছিল, জয়নাল পড়া শেষ করে গার্মেন্টে বড় চাকরি করবে। তবে সেই স্বপ্ন আর পূরণ হলো না। জয়নাল পরিবারের সঙ্গে থাকত নগরীর আমিন জুট মিল কলোনি এলাকায়। তার মা জোহরা বেগম অভিযোগ করেন, একমাত্র ছেলেকে ঘুম থেকে তুলে নিয়ে হত্যা করেছে পুলিশ। হত্যায় জড়িতদের বিচার চেয়ে তিনি বলেন, এখন আমার ছেলেকে খারাপ বানানোর জন্য অনেকেই অনেক কিছু বলছে। নিরপেক্ষ তদন্ত হলে সত্য বের হয়ে আসবে। সরকারের কাছে নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি করছি।
একই ক্লাসে পড়া বোন প্রিয়া বলে, আমি আর আমার ভাই জয়নাল দশম শ্রেণিতে পড়তাম। একসঙ্গে স্কুলে যেতাম। একসঙ্গেই বাসায় ফিরে আসতাম। ভাই কোনো ঝামেলায় ছিল না। মাঝেমধ্যে মিছিল-সমাবেশে যেত। এটাই তার জন্য কাল হয়েছে বলে মনে হচ্ছে। সে যদি অপরাধী হতো, তাকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো যেত; তারপর বিচার হতো।
মামলার বাদী ও আসল আসামি জয়নালের ভাষ্য :নগরীর রৌফাবাদ পাহাড়িকা আবাসিক এলাকার বাসিন্দা মামলার বাদী শাহ আলম বলেন, মারধর, হত্যাচেষ্টা ও চুরির যে মামলা করেছি, সেই মামলার আসামি জয়নাল বেঁচে আছে। সে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মারা যায়নি। তবে এ মামলার আসামি ভেবে পুলিশ অন্য জয়নালকে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মেরে ফেলেছে বলে শুনেছি। পুলিশ চার্জশিটেও এ মামলার আসামি জয়নাল ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মারা গেছে বলে উল্লেখ করেছে। শাহ আলম আরও বলেন, আসামি জয়নাল যেহেতু জীবিত, তাই তাকে চার্জশিটভুক্ত করতে গত ৩ সেপ্টেম্বর আদালতে আবেদন করেছি। আদালত ৬ অক্টোবর এ আবেদন শুনানির দিন ধার্য করেছেন।
আসল আসামি মো. জয়নাল জানায়, আমাকে মারতে গিয়ে হয়তো জয়নাল নামে আমিন জুট মিল এলাকার একটি ছেলেকে পুলিশ মেরে ফেলেছে। হায়াত আছে বলে এখনও বেঁচে আছি। আমি মরে গেছি ভেবে পুলিশ চার্জশিট থেকেও নাম বাদ দিয়ে দেয়। যেহেতু বেঁচে আছি, তাই পুলিশ মামলা থেকে নাম বাদ দিলেও আদালতে আসামি হিসেবে হাজিরা দিয়ে জীবনকে রক্ষা করতে চাইছি।
শিক্ষার্থী জয়নালের শিক্ষক ও সহপাঠীদের বক্তব্য :বায়েজিদ টেক্সটাইল অ্যান্ড ভোকেশনাল ইনস্টিটিউটের সুপারিনটেনডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার সাইফুর রহমান বলেন, এ প্রতিষ্ঠানে জয়নালের আচার-আচরণ ভালো ছিল। তারপরও কেন সে ‘বন্দুকযুদ্ধের’ শিকার হলো, জানি না। ইনস্টিটিউটের অফিস সহকারী মো. জুবায়ের বলেন, জয়নাল ভালো ছেলে ছিল। তার প্রশ্ন- স্কুলের একজন ছাত্র কী এমন অপরাধ করল যে তাকে মেরে ফেলতে হলো!

জয়নালের সহপাঠী মো. সিদ্দিক জানায়, তারা একসঙ্গে পড়াশোনা করেছে। জয়নাল কারও সঙ্গে কোনো ঝামেলায় জড়াত না। তবুও তাকে বড় অপরাধীর মতো মেরে ফেলার কারণ বুঝতে পারছি না।

যে অবস্থায় আছে মারধর মামলার কার্যক্রম :২০১৮ সালের ৩ নভেম্বর বায়েজিদ থানার রৌফাবাদ পাহাড়িকা আবাসিক এলাকার শাহ আলমের বাসায় ঢুকে মারধর, হত্যাচেষ্টা ও চুরির ঘটনায় সাতজনের নামে মামলা হয়। বখাটে মো. জয়নালকে ২ নম্বর আসামি করা হয়। তবে ২০১৯ সালের ১ সেপ্টেম্বর শিক্ষার্থী মো. জয়নালকে আটক করে বায়েজিদ টেক্সটাইল ইনস্টিটিউটের সামনের মাঠে কথিত অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে যায় পুলিশ। পরে ‘বন্দুকযুদ্ধের’ পর একটি দেশীয় এলজি, কিরিচ ও চারটি কার্তুজের খোসা উদ্ধার করার তথ্য জানানো হয়। একই সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এসআই গোলাম মোহাম্মদ নাসিম হোসেন ও কনস্টেবল মাসুদ রানা আহত হন বলে দাবি করে পুলিশ। তারপর তদন্ত শেষে পুলিশ গত বছরের ২৫ সেপ্টেম্বর আসামি বখাটে জয়নাল ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মারা গেছে উল্লেখ করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে। একই বছরের ১৫ অক্টোবর চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে চার্জশিট দাখিল করে কোর্ট পুলিশ। ওই দিনই শুনানির পর চার্জশিট আমলে নিয়ে ‘মারা যাওয়া’ বখাটে আসামি জয়নালকে মামলার দায় থেকে অব্যাহতি দেন আদালত। এর পর হঠাৎ চলতি বছরের ২৫ ফেব্রুয়ারি এ মামলার শুনানির দিন আদালতে আইনজীবীর মাধ্যমে হাজিরা দাখিল করে বখাটে জয়নাল। মামলার বিচার কার্যক্রম এখন সাক্ষ্য গ্রহণ পর্যায়ে।

পাঠকের মতামত: