কক্সবাজার, বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০

মুন্সীগঞ্জে মাদক কারবারি ৭ রোহিঙ্গাসহ আটক ৮

মুন্সীগঞ্জ সদরের মুক্তারপুরের একটি বাড়ি থেকে মাদক কারবারি ৭ রোহিঙ্গাসহ ৮ জনকে আটক করেছে পুলিশ। এসময় তাদের কাছ থেকে ৯শ’ ইয়াবা ট্যাবলেট, মাদক বিক্রির ৯০ হাজার টাকা এবং তাদের ব্যবহৃত ৩টি উদ্ধার করেছে।

শনিবার (২৪ অক্টোবর) তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। আটককৃতদের মধ্যে ৭ জন রোহিঙ্গা। এর মধ্যে ৬জনই নারী।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসি আনিচুর রহমান সময় সংবাদকে জানান, কক্সবাজারের টেকনাফ থেকে ইয়াবার চালান নিয়ে নানা কৌশলে এখানে আসে। এরপর মুক্তারপুরে ইয়াবার একটি চালান বিক্রি করে আরেক চালান বিক্রির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। এ সময় শনিবার ৭ রোহিঙ্গাকে আটক করা হয়। পরে বিষয়টি জানাজানি না করে উত পেতে স্থানীয় এক কারবারি রাজেশকে ধরার পর রোববার (২৫ অক্টোবর) দুপুরে  আটককৃতদের মিডিয়ার সামনে নিয়ে আসা হয়।

এদের মধ্যে আটককৃত রোহিঙ্গা মাদক কারবারিদের মধ্যে একই পরিবারের পাঁচজন রয়েছে। এরা হলেন- নূর বেগম (৫০), তার তিন কন্যা আজু বেগম (৩৫), শাকিলা রুমা (২৫), নূরজাহান রোমানা (১৯) ও নূরজাহান রোমানার স্বামী জিয়া বল (৩০)। এছাড়াও তাদের আত্মীয় আরও দুই কিশোরী সুমায়া আক্তার(১৬) ও  নূর কায়দা (১৫) রয়েছেন। তারা টেকনাফের লেদা ক্যাম্প-২৪ এর বাসিন্দা।

তাদের বিরুদ্ধে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় মাদক আইনে মামলা হয়েছে। পরে আদালতের মাধ্যমে আসামীদের জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। মায়ের অপরাধের জন্য এখন অবুঝ শিশু ওসমান গনিও কারাগারে।

মুন্সিগঞ্জ থানার ওসি জানান, নানা কারণে এখনই রিমান্ড চাওয়া হয়নি। যেহেতু নারী আসামী বেশী তাই ঊর্ধ্বতনদের সাথে কথা বলে পরবর্তীতে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। তবে তাদের কাছ থেকে মাদক সংক্রান্ত কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে।

পাঠকের মতামত: