কক্সবাজার, শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০

টেকনাফ-সেন্টমার্টিন পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল শুরু

আট মাস বন্ধ থাকার পর কক্সবাজারের টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিনে নৌপথে ফের পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল শুরু হচ্ছে। আবহাওয়া স্বাভাবিক থাকলে আগামীকাল শুক্রবার সকাল থেকে এ রুটে পর্যটকবাহী জাহাজ কেয়ারি সিন্দাবাদ চলাচল শুরু করবে।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ শাজাহান আলী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘শুক্রবার সকাল থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। কাগজপত্র যাচাই-বাচাই করে শুধুমাত্র কেয়ারি সিন্দাবাদ নামে একটি জাহাজকে অনুমতি দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) চট্টগ্রাম বিভাগের উপপরিচালক নয়ন শীল বলেন, ‘চলতি মৌসুমে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথে চলাচলের জন্য দুটি জাহাজ অনুমতি চেয়েছে। তার মধ্যে এমভি কেয়ারি সিন্দাবাদ জাহাজকে গত ১ অক্টোবর থেকে ১২ ডিসেম্বর এবং এমভি ফারহান পর্যটকবাহী জাহাজকে ৪ নভেম্বর থেকে আগামী বছরের ২৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। অনুমতি দেওয়ার পরও ঠিক কী কারণে এ নৌরুটে জাহাজ চলাচল এতদিন শুরু হয়নি সেটা জানা নেই।’

কেয়ারি সিন্দাবাদ জাহাজের টেকনাফের ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ শাহ আলম বলেন, ‘জেলা প্রশাসকের ছাড়পত্র পেয়েছি, শুক্রবার থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে জাহাজ চলাচল শুরু করবে। যদিও এর আগে বিআইডব্লিউটিএ ও নৌ-পরিবহন দপ্তরের ছাড়পত্র পেয়েছি। আমরা দ্বীপে ভ্রমণকারীদের টিকিট বিক্রি শুরু করেছি।

সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুর আহমদ বলেন, ‘দ্বীপে পর্যটক ব্যবসায়ীরা তাদের আবাসিক হোটেল ও কটেজগুলো সাজিয়ে রাখছেন। জাহাজ চলাচলের খবরে দ্বীপে সব শ্রেণি পেশার মানুষের মধ্যে প্রাণ চাঞ্চল্য ফিরেছে।’

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘টেকনাফ-সেন্টমার্টিন পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচলের অনুমতির বিষয়ে সন্ধ্যায় নির্দেশনা পেয়েছি। অতিরিক্ত যাত্রী বহন না করার জন্য জাহাজ কর্তৃপক্ষকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।’

পাঠকের মতামত: