কক্সবাজার, শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১

কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি ছমি উদ্দিনের অপসারণ দাবীতে বিশাল মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক::
উখিয়ার কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয়ে জালিয়াতির  মাধ্যমে সভাপতি মনোনীত ছমি উদ্দিন কে সভাপতির পদ থেকে প্রত্যাহারের দাবীতে বিশাল   মানববন্ধনোত্তর বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছেন বিদ্যালয়ের অভিভাবক, শিক্ষার্থী ও সচেতন নাগরিক সমাজ।
কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি ছমি উদ্দিনের অপসারণ দাবীতে বিশাল মানববন্ধন (৮ ফেব্রুয়ারী) সকাল ১১ টায় কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান ফটক সম্মুখের  কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কে মানববন্ধন কর্মসূচি ও বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন উখিয়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মুজিবুল হক আজাদ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক মাসুদ আমিন শাকিল, রাজাপালং ইউনিয়ন কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান রাব্বি, মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্মলীগ রাজাপালং ইউনিয়ন সভাপতি সাইফুল ইসলাম, যুবনেতা মোঃ আলী,মোঃরুবেল।
বিশাল মানববন্ধনে কুতুপালং পালং উচ্চ বিদ্যালয়ের অভিভাবক অপু বড়ুয়া সহ শত-শত অভিভাবক-অভিভাবিকা শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।
এসময় মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্মলীগ কেন্দ্রীয় সদস্য আমান উল্লাহ মৌল্লা,আওয়ামীলীগ নেতা বুলু মিয়া,আবুল হোসেন,সমাজ নেতা মোঃরসিদ, যুবলীগ নেতা নুরুল ইসলাম, নুরুল আবছার, কৃষকলীগ নেতা আবদুর রহিম সহ সহস্রাধিক মানুষ মানববন্ধন কর্মসূচিতে স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে যোগ দেম।
বক্তারা অবিলম্বে কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি পদ থেকে দূর্নীতিপরায়ন সভাপতি ছমি উদ্দিন কে অপসারণের দাবী জানিয়ে কুতুপালংয়ের উন্নয়নের প্রতীক মেম্বার হেলাল উদ্দিন কে সভাপতি পদে স্থলাভিষিক্তের দাবী জানান। এসময় শত-শত নারী-পুরুষ,অভিভাবক-অভিভাবিকা এবং শিক্ষার্থীরা হাত উচিয়ে ছমি উদ্দিন কে সভাপতি হিসেবে চাইনা, হেলাল উদ্দিন কে সভাপতি চাই মর্মে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন।
বক্তারা আরো বলেন ছমি উদ্দিন চট্টগ্রামের আলোচিত এইট মার্ডারের শিবিরের নেতা নাছির সহ অপরাপরদের জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে জামিন নেওয়ার অভিযোগে সনদ বাতিল হয়েছিল। সে কুতুপালংয়ের ভোটার হলেও তার কোন অস্তিত্ব নেই এলাকায়। জনবিচ্ছিন্ন ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত তিনি। কুতুপালংয়ে ১৫/১৬জন ব্যবসায়ির নিকট থেকে সেলামী বাবদ ৩০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এসব টাকা চাইতে গিয়ে অনেকেই মিথ্যা মামলায় হয়রানির শিকার হতে হয়েছে।
বক্তারা বলেছেন, ছমি উদ্দিন দীর্ঘ ৬ মাস কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয়ের এডহক কমিটির সভাপতি থাকাকালীন স্কুলের কোন উন্নয়ন হয়নি, বরং রোহিঙ্গা ছাত্র ভর্তি এবং অতিরিক্ত ফি আদায় নিয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য হিসেবে হেলাল উদ্দিন প্রতিবাদ করায় তাঁর বিরুদ্ধে নানা মিথ্যাচার করে বেড়াচ্ছে৷ মানববন্ধনে বক্তারা দুনীতিবাজ ছমি উদ্দিনের বিরুদ্ধে সুষ্ঠু তদন্ত পূর্বক কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয়ের মতো স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান থেকে তাকে সভাপতি পদ হতে সরিয়ে দেওয়ার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানের নিকট জোর দাবি জানিয়েছে।

পাঠকের মতামত: