কক্সবাজার, শুক্রবার, ২০ নভেম্বর ২০২০

কন্যা সন্তান তাই পানিতে ফেলে হত্যা করলো পাষণ্ড বাবা

স্ত্রীর গর্ভে পরপর ৩টি কন্যা সন্তান হওয়ায় রাগে ক্ষোভে ৪০ দিন বয়সী এক কন্যা সন্তানকে পানিতে ফেলে হত্যা করেছে তার বাবা। মর্মান্তিক এ ঘটনাটি ঘটেছে বরগুনার আমতলী উপজেলার গুলিশাখালী ইউনিয়নের গোছখালী গ্রামে গত বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে। ওই কন্যার নাম জিদনী। তার পাষণ্ড পিতার নাম জাহাঙ্গীর সিকদার।

এ ঘটনায় জিদনীর মায়ের করা মামলায় একমাত্র আসামি হিসেবে জাহাঙ্গীর সিকদারকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। বাবার হাতে শিশু কন্যা হত্যার এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয়রা এ ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবি করেছে। শনিবার পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে জাহাঙ্গীর সিকদার তার শিশু কন্যা হত্যার কথা স্বীকার করেছে বলে পুলিশ সূত্র থেকে জানা গেছে। আজ রবিবার তাকে আদালতে সোপর্দ করা হবে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার গুলিশাখালী ইউনিয়নের গোছখালী গ্রামের জাহাঙ্গীর সিকদার ও সীমা দম্পতির সোহাগী (৯) এবং জান্নাতী (৩) নামে দুইটি কন্যা সন্তান রয়েছে। গত ৮ ডিসেম্বর ওই দম্পতির জিদনী নামের আরেকটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। বাবা জাহাঙ্গির কন্যা সন্তান জন্মের বিষয়টি মেনে নিতে পারেনি। সে একটি পুত্র সন্তানের আশা করেছিল। এ কন্যা শিশু জন্মের পর থেকেই জাহাঙ্গির তার স্ত্রীর মধ্যে মনোমালিন্য চলে আসছিল।
প্রতিবেশীদের অভিযোগ, কন্যা সন্তান জন্মের পর থেকেই জাহাঙ্গির স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলা বন্ধ করে দেয় এবং কন্যা সন্তানটি ছুঁয়েও দেখেনি। বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে বাবা জাহাঙ্গীর সিকদার জিদনিকে নিয়ে ঘরে শুয়ে ছিল। এ সময় তার স্ত্রী সীমা বেগম এবং তার শ্বাশুরী পারুল বেগম ঘরের বাহিরে গৃহস্থালী কাজ করছিলেন। শিশুটির মা সীমা বেগম এবং নানী পারুল বেগম কাজ শেষে রাত ১১টার দিকে ঘরে প্রবেশ করে শিশু জিদনি ও তার বাবাব জাহাঙ্গিরকে দেখতে না পেয়ে ডাক চিৎকার দেয়। এতে প্রতিবেশীরা এবং বাড়ির অন্যান্য লোকজন ছুটে আসে।
পরে স্বজনরা খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে রাত সাড়ে ১১টার দিকে ঘরের পিছনের ডোবা থেকে কাঁথায় মোড়ানো বিছানাপত্রসহ জিদনির মরদেহ উদ্ধার করে। খবর পেয়ে আমতলী থানার পুলিশ রাত ৩টার দিকে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে প্রেরণ করে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে পাষণ্ড বাবা জাহাঙ্গীর সিকদারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসে। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে পাষণ্ড বাবা জাহাঙ্গীর শিকদার নিজের কন্যা শিশুকে পানিতে ফেলে হত্যার কথা স্বীকার করেছে।

আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল বাশার জানান, পাষন্ড বাবাকে জিজ্ঞাসাবাদে শিশুটিকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। হত্যার কথা স্বীকার করায় শনিবার তাকে সন্তান হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। আজ রবিবার তাকে আদালতে সোপর্দ করা হবে।ইত্তেফাক

পাঠকের মতামত: