কক্সবাজার, শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১

করোনা রোগীদের অবহেলা নয়! সমাজে তাদেরও বাঁচার অধিকার আছে

তানভীর শাহরিয়ার::

পৃথিবী যেন এক অঘোষিত লকডাউন! মহামারি Covid-19 বা করোনা ভাইরাস সভ্যতাকে নিস্তব্ধ করে দিছে। প্রতিনিয়ত মৃত্যুর মিছিলে জানিনা কখন আমি, আপনিও হারিয়ে যায়। বিশ্ব, রাষ্ট্র ও সমাজ এমনই রুপ ধারণ করেছে যা মানব ইতিহাসে অনন্য অধ্যায়।

হঠাৎ থমকে গেছে মানব সভ্যতার পরিধি। কেন? এমনই হলো! এ প্রশ্নের জবাব কি পৃথিবীর কোন ক্ষমতাধর রাষ্ট্র বা ব্যক্তি দিতে পারবে? যদি দিতে পারতো তাহলে প্রায় অর্ধবছর চলে যাচ্ছে এখনো জবাবের হদিস মিলেনি।

আগে ইউরোপের দেশ গুলোর কথা বলবো না। আমাদের ভারতবর্ষ থেকে শুরু করি, ভারতের প্রদেশিক রাজ্যে কিছু দিন আগে সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ” করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করা ব্যক্তির লাশের পাশে কোন সমাজপতি, আত্বিয় বা প্রতিবেশী আসেনি, তার মানে কি এমন? করোনায় মৃত ব্যক্তি অবহেলায় শিকার? নাকি প্রকৃতির অমানবিকতায় শিকার। শেষমেশ নিজের তিন কন্যার কাঁধে চড়ে মাটিতে শায়িত হলো। আমরা দেখেছি, দুঃখ্য প্রকাশ করেছি, কিন্তু করার কিছুই ছিলনা।

আবার এটাও দেখেছি, ইউরোপীয় দেশ গুলোতে করোনায় মৃত মানুষদের কফিনে রজনীগান্ধা ও লাল গোলাপ দিয়ে বরণ করতে। পাশাপাশি আক্রান্ত মানুষদের মনোবল বাড়ানোর জন্য ফুল দিয়ে অভিবাদন জানাচ্ছে।

সেদিক দিয়ে কি আমরা ভারতবর্ষবাসী পিছিয়ে আছি। কিন্তু কেন? প্রশ্নই প্রশ্ন থেকে গেল।

কাজেই Covid-19 বা করোনা আক্রান্ত মানুষদের জন্য সৃষ্টি কর্তা আল্লাহর দরবারে দোয়া করি, তাদের সুস্থতা দান করুক। এবং আমরা যাযাবর অবস্থান থেকে তাদের সম্মান করি ও মনোবল বাড়ানোর সাহস যোগায়। এ সমাজে আমি, আপনার যেমন বাঁচার অধিকার আছে তেমনই করোনা আক্রান্ত হওয়া মানুষেরও অধিকার আছে। আসুন আমরা মানুষ হিসাবে মানবিক ভাবে বিবেচনা করি এবং মানবিক হই।

সরকারের নির্দেশনা মেনে চলুন। নিজে নিরাপদ থাকুন এবং অন্যকে নিরাপদ রাখুন। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন তবে অমানবিক ভাবে নয়, মানুষ হিসাবে মানবিক ভাবে।

পরিশেষে, সকলের কাজ থেকে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। আমার এ লিখাই যদি কেউ কষ্ট নিন অথবা কোন ভুল হয়ে থাকে সুদৃষ্টিতে দেখবেন। পর্ব-০১

লেখক:

সাংবাদিক তানভীর শাহরিয়ার, কক্সবাজার।

পাঠকের মতামত: