কক্সবাজার, শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১

কক্সবাজারে উদ্ধারকৃত লজ্জাবতী বানরের ঠিকানা সাফারি পার্কে

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, কক্সবাজার::

কক্সবাজারের রামু গর্জনিয়া ঘিলাতলি বেলতলি বাজার হতে বন বিভাগ কতৃক উদ্ধার করা বিপন্ন বিরল প্রজাতির বাংলা লজ্জাবতী বানর(বেঙ্গল স্লো লরিস) টির অবশেষে ঠিকানা হয়েছে ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সাফারি পার্কে।

মঙ্গলবার বিকালে সাফারি পার্ক কতৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। সোমবার দিনগত রাত আড়াইটার দিকে ঢাকা বন্যপ্রানী অপরাধ দমন ইউনিটের পরিচালক জহির আখন এর তথ্যের ভিত্তিতে কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোঃ তহিদুল ইসলামের নির্দেশে বনকর্মীরা বাঘখালী রেঞ্জ গিলাতলি বিট এলাকার বেলতলি বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে ‘বেঙ্গল স্লো লরিস’ উদ্ধার করেন।

এসময় স্থানীয় জনগণের সহযোগীতায় অভিযানে আরো অংশ নেন, উত্তর বনবিভাগের সহকারী বন সংরক্ষক (সদর) মোহাম্মদ সোহেল রানা, বাঘখালী রেঞ্জ রেঞ্জ কর্মকর্তা একেএম আতা এলাহি, বিশেষ টহল দলের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইমদাদুল হক ও বিশেষ টহল দলের সদস্যরা।

বিশেষ টহল দলের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইমদাদুল হক বলেন, উদ্ধারকৃত বিরল বিপন্ন প্রজাতির লাজুক বানর ‘বেঙ্গল স্লো লরিস’টি মঙ্গলবার বিকালে চকরিয়া ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সাফারি পার্ক কতৃপক্ষের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। বিপন্ন বিরল প্রজাতির বাংলা লজ্জাবতী বানরটির এখন ঠিকানা হয়েছে সাফারি পার্কে।

কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোঃ তহিদুল ইসলাম বলেন,বেঙ্গল স্লো লরিস লজ্জাবতী বানর বা বাংলা লজ্জাবতী বানর বা লাজুক বানর। এর বৈজ্ঞানিক নাম ন্যাক্টিসেবাস বেঙালেনসিস হচ্ছে লরিসিডি পরিবারের একটি বানর প্রজাতি। এটা বিপন্ন প্রায় এবং বিরল প্রজাতির। এই লজ্জাবতি বানর সচরাচর এখন দেখা যায় না।

তিনি বলেন, বর্তমান করোনা সংকটে সব দিকে চলছে লকডাউন। এ অবস্থায় প্রকৃতি অনেকটা ফিরে পেয়েছে আপন সত্তা। স্থানীয় সচেতন জনগনকে যারা বন্যপ্রানীটি উদ্ধার কাজে অগ্রনী ভূমিকা রেখেছে তাদের কৃতজ্ঞতাও জানান এই বন কর্মকর্তা।

পাঠকের মতামত: