কক্সবাজার, শনিবার, ২১ নভেম্বর ২০২০

টেকনাফের শাহপরী দ্বীপে বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিলেন ভারতের সাতাঁরু মুকেশ গুপ্ত

জাহাঙ্গীর আলম, টেকনাফ::

কক্সবাজার টেকনাফের শাহপরী দ্বীপ বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিলেন ভারতের সাতাঁরু মুকেশ গুপÍ।কাজী হামিদুল হকের প্রচেষ্টায় শুরু হওয়া বাংলা চ্যানেল সাঁতারের ১৪তম বছরে জয়ীদের তালিকায় আজ নাম লেখালেন ভারতীয় দূরপাল্লার সাঁতারু মুকেশ গুপ্ত।জল বাঁচাও -গাছ বাঁচাও এই স্লোগান নিয়ে কলকাতার মুকেশ এবার সাঁতরে পাড়িদেন বাংলা চ্যানেল এর টেকনাফ ফিশারিস জেটি থেকে সেন্টমার্টিন জেটির ১৬.১ কিলোমিটারের চ্যানেলটি।

সাতাঁরু মুকেশ গুপ্ত জানান,আমাদের এই ধরিত্রীর জলবায়ু পরিবর্তন ও মানব সৃষ্ট দূষণের কবলে আমাদের ভূ উপরস্থ পানি ও গাছপালা আজ চরম সংকটের প্রহর গুনছে। আমাদের একটু সচেতনতা ও সক্রিয় অংশগ্রহণে এই সংকট রোধ করা সম্ভব, এই বিশ্বাস থেকেই সকলের দৃষ্টি আকর্ষণে এই দুঃসাহসিক বাংলা চ্যানেল সাঁতার।

১২ ডিসেম্বর সকাল ৯টা ৩৬ মিনিটে টেকনাফ প্রান্ত থেকে সাঁতার শুরু করেন মুকেশ গুপ্ত ৪ ঘন্টা ৮ মিনিট সময় নিয়ে যখন সেন্টমার্টিন প্রান্ত ছুঁয়েছেন তখন, ঘড়ির কাটায় বেলা ১টা ৪৫ মিনিট। এডভেনচার মুকেশের কোনো চ্যানেল জয়ের চ্যালেঞ্জ এবারই প্রথম। বাংলা চ্যানেল জয় দিয়ে মুকেশ চ্যানেল সুইমিং বা লং ডিসটেন্স ওপেন ওয়াটার সি সুইমিংয়ের এলিট ক্লাবে নিজের নাম লেখালেন। ২১ বছর বয়সী দুরন্ত – ডানপিঠে স্বভাবের মুকেশ গুপ্ত পশ্চিমবঙ্গের কলকাতার প্রায় সবগুলি ব্রিজে অসংখ্যবার ব্রিজ জাম্পিং করেছেন। কেবল হাওড়া ব্রিজ থেকেই ৩২ বার জাম্প দেয়ার রেকর্ড আছে এই ব্রিজের জাম্পারের। আগামীতে আন্ত মহাসাগরীয় কায়াকিং, ভারতীয় চ্যানেল গুলি সহ আরো কিছু নতুন ও দুঃসাহসিক দূরপাল্লার সাঁতারের পরিকল্পনা ব্যক্ত করে মুকেশ গুপ্ত ।

এভারেস্ট একাডেমির আয়োজনে, মুকেশ গুপ্তের এই সাঁতার অভিযানের শুরু থেকে সব কিছুরই নির্দেশনা দিয়ে এসেছেন তার সাঁতার প্রশিক্ষক ও মেন্টর কলকাতার পুষ্পেন সামান্থ। রেফারির দায়িত্ব পালন করেন ফিফা রেফারি তোফাজ্জল হোসেন বাচ্চু এবং নেভিগেটর হিসাবে ছিলেন রাফাহ উদ্দিন সিরাজী । সাঁতার দলটির সহযোগিতায় ছিলেন নর্থ আলপাইন ক্লাব বাংলাদেশ,ট্যুর অপারেটর হিসাবে এলিগ্রো ট্যুরস, মেডিকেল সাপোর্ট এ হেলদি হোম বিডি এর ডাঃ মাহমুদুল হাসান খান, লাইফ গার্ড হিসাবে ছিলেন সি আই পি আর বি (ঈওচজই) এর সি সেফ সুইমিংয়ের মো:কামাল। প্রতি বছর দেশ বিদেশের অনেক সাতারুই বাংলা চ্যানেল জয়ীদের নামের তালিকায় নিজেদের অন্তর্ভুক্ত করছেন এবং এই চ্যানেল জয়ের পরিকল্পনা করছেন। বিশ্বের যেকোনো সি চ্যানেলের তুলনায়, বাংলা চ্যানেল অনেক বেশি আকর্ষণীয় ও নিরাপদ।

পাঠকের মতামত: