কক্সবাজার, শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি হর্টিকালচার সেন্টার চলছে নানা সীমাবদ্ধতায়

আমিনুল ইসলাম, নাইক্ষ্যংছড়ি(বান্দরবান)::
বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড় উপজেলার এক মাত্র হর্টিকালচার সেন্টার টি নানা সীমাবদ্ধতার মধ্যও এগিয়ে চলছে। জানা যায় উপজেলা সদরের প্রাণ কেন্দ্র অবস্তীত। বিশ একর জমি মধ্যে সমতল পাহড় ঝিরে মিল মনোরমা  দৃষ্টি নন্দন পরিবেশ এর অবস্থান । চার পাশে সিমানা প্রচির দেওয়া থাকলে ও নানা সমস্যা কথা জানান কৃষি বিদ  এমরান কবির সেবা মূলক প্রতিষ্টান টি উপজেলার কৃষির উন্নয়নে বিশাল ভূমিকা রেখে যাচ্ছে, প্রতিবছর সরকার নির্ধারিত মূল্য হাজার হাজার ফলজ বনজ ঔষধি চার উতপাদন করে বিক্রি করে যাচ্ছে এলাকার কৃষক কৃষানিদের কাছে। প্রতিষ্টানিটর  সুনাম ছড়িয়ে পড়ায় পার্শবর্তি উপজেলার লোক জনও প্রতি নিয়মিত আসে সৌখিন ফুল সহ নানা জাতের গাছের চারার জন্য। বর্তমানে বর্ষামৌসুমে শুরু তে এরকম বৃক্ষ প্রেমীদের দেখা মিলে প্রতি দিন।করোনা পরীস্তিতির মধ্য ও প্রতিদিন সরকারি নির্দেশনা মেনে কাজকরছে প্রতিষ্টান টির সকল কর্মকর্তা কর্মচারি।
এছাড়া কর্মকর্তাদের সাতে আলাপে জানাজায়  উপজেলায বাগানিদের চাহিদা অনুযায়ী চারা উৎপাদন করতে নানা সীমাবদ্ধতার কথা। প্রতিবছর
বিভিন্ন চারার প্রচুর চাহিদা থাকলেও আমরা পর্যাপ্ত সরবরাহ করতে পারছিনা আমাদের জন বল সহ
নানা সমস্যার কারনে। এছাড়া
শুকনো মৌসুমে সেচের পানি সংকট,  চারা উৎপাদনের জন্য পানি সবসময় প্রযোজন, পানি সরবরাের এক মাত্র বাধ টি ভেঙে যাওয়া  সেচের জন্য অনেকে সমস্যায় পড়তে হবে আমাদের। বাধটি মেরামত করা খুবেই জরুরি,   জনবলের অভাবে রক্ষনা বেক্ষন করতে পারছিনা ২০ একর জমির গাছ পালা সহ ব্যাহত হয় চারা উতপাদন কর্যক্রম।
এছাড়া কর্মকর্তা কর্মচারিদের থাকার আবাসন সুবিধার জন্য একটা ড়রমেটরি ভবন একান্ত প্রযোজন।
এই বছরে সেবামূলক প্রতিষ্টানটি চারা বিক্রি করেছে পাঁচ লক্ষ টাকার যা বিগত চার বছর আগে ছিল মাত্র ১৫ হাজার টাকা কৃষি প্রধান নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার কৃষকের চাহিদা অনুযায়ী চারা উৎপাদন করে সরবরাহ করতে পারলে কৃষির আমুল পরিবর্তন আসবে অত্রএলাকায়। এবং যোগ হবে জাতীয় অর্থনিতিতে।
এমরান কবির জানান সমস্যা গুলো সামাধান করার জন্য উর্ধতন মহলের জরুরি ব্যাবস্তা নেওয়া দরকার।যতে আগামীতে  এলাকার কৃষকদের চাহিদা অনুযায়ী চারা সরবরাহ করতে পারি। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বান্দরবান পার্বত্যজেলা পরিষদ সদস্য  ক্যানোওয়ান চাক প্রতিবেদক কে জানান সমস্যার কথা শুনে  ইতি মধ্যে হর্টিকালচার সেন্টার টি আমি পরিদর্শন করেছি, সমস্যা গুলো মননীয় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মহোদয় কে অবগত করে পর্যায় ক্রমে সামাধানের উদ্যোগ নেওয়া হবে।

পাঠকের মতামত: