কক্সবাজার, শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

কক্সবাজারে নির্মাণ হচ্ছে বিশ্বমানের দৃষ্টিনন্দন মসজিদ : এমপি কমল দিলেন ৬৫ লক্ষ টাকা বরাদ্দ

নিজস্ব প্রতিবেদক::

বিশ্বের অন্যতম পর্যটন শহর কক্সবাজারে শত কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিতব্য বিশ্বমানের দৃষ্টিনন্দন মসজিদ নির্মাণে কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল প্রাথমিক পর্যায়ে ৬৫ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন।

সোমবার বিকালে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদের হাতে এ মসজিদের নকশা তোলে দেন আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি, কক্সবাজারের প্রবীন আওয়ামী লীগ নেতা, বীর মুক্তিযোদ্ধা এস এম কামাল হোসেন চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের অর্থ সম্পাদক ও জেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বিশিষ্ট ব্যবসায়ি আব্দুল খালেক।

এসময় বিশিষ্ট আলেমেদ্বীন, রামুর জোয়ারিয়ানালা এমদাদুল উলুম মাদ্রাসার নায়েবে মুহতামিম মাওলানা হাফেজ আব্দুল হক, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ইশতিয়াক আহমদ জয়, কক্সবাজার জেলা বারের এডিশনাল পিপি কক্সবাজার জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি এড. একরামুল হুদা, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এম. ওসমান সরওয়ার আলম চৌধুরী, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক জসিম উদ্দিন ছিদ্দিকী, কক্সবাজার শহর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আব্দুর রহমান, সহ-সভাপতি বাবুল হোসাইন রনিসহ গন্যমান্য ব্যক্তিগণ উপস্থিত ছিলেন।

শত কোটি টাকা ব্যয়ে কক্সবাজার শহরে সংযুক্ত আরব আমিরাতের শেখ জায়েদ মসজিদ ও দিল্লী জামে মসজিদের অনুকরণে ব্যতিক্রমধর্মী পৃথিবীর অন্যতম দৃষ্টিনন্দন এ মসজিদের নির্মাণকাজ শুরু করার অভিমত ব্যক্ত করে আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল জানান, বিশ্বমানের এ মসজিদের নির্মাণ কাজ শুরু করার আগে কক্সবাজারের আলেম সমাজের প্রতিনিধি, বীর মুক্তিযোদ্ধা, রাজনৈতিক, প্রশাসনিক, সামাজিক, ব্যবসায়ি, সাংবাদিক নেতৃবৃন্দসহ জেলার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে একটি মতবিনিময় সভা আহবান করা হবে। সভার সকলের সম্মতিক্রমে একটি মসজিদ নির্মাণ কমিটিও গঠন করা হবে।

এমপি কমল জানান, ইতিমধ্যে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান, জেলার বিশিষ্ট আলেমগণ, রাজনীতিক, ব্যবসায়ি সাংবাদিকসহ সর্বস্তরের মানুষ কক্সবাজার কেন্দ্রীয় ঈদগাঁহ ময়দানে বিশ্বমানের এ সমজিদ নির্মাণে সম্মতি দিয়েছেন। মসজিদ নির্মাণে তিনি প্রাথমিক পর্যায়ে ৬৫ লক্ষ টাকা বরাদ্ধ দিয়েছেন বলে উল্লেখ করেন।

২৮ জুন (সোমবার) কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের হাতে দৃষ্টিনন্দন এ সমজিদের নকশা প্রদান কালে একটি অবহিত পত্র প্রদান করেন নেতৃবৃন্দ। আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়অর কমল এমপি স্বাক্ষরিত এ পত্রে উল্লেখ করা হয়- কক্সবাজার কেন্দ্রীয় ঈদগাঁহ ময়দানটি আধুনিককরণ প্রয়োজন।

এ ময়দান কয়েক বছর আগেও সম্পুর্ন ঘাস দ্বারা আবৃত ছিল। বর্ষা মৌসুমে অনেক সময় কাদার কারনে মুসল্লিরা এখানে নামাজ পড়তে পারেনি। এমনকি ২০২০ সালের ঈদের জামাতেও অন্তত ৫০ হাজার মানুষ বৃষ্টিতে ভিজেছে। পৌরসভা প্রতিবছর ঈদে প্রায় ১০ লক্ষ টাকা ব্যয় করে আংশিক অস্থায়ী প্যান্ডেল নির্মাণ করলেও মুসল্লিদের তুলনায় তা যথেষ্ট নয়। আমি ২০১৭ সালে ৩০ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দিয়ে এ ঈদগাঁহ ময়দানে সীমানা দেওয়াল নির্মাণ করেছিলাম।

২০১৮ সালে ৫০ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দিয়ে এ ময়দানের এক তৃতীয়াংশ আরসিসি দ্বারা পাকা করেছিলাম। মসজিদ নির্মাণে ইতিমধ্যে আমি টি.আর প্রকল্প থেকে ১৫ লক্ষ টাকা ও জেলা পরিষদ থেকে ৫০ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দিয়েছি।

ময়দানের মধ্যাংশে খোলা মাঠ এবং মংদানে পার্কিংয়ের জায়গা সংরক্ষণ রেখে তোরণ নির্মাণসহ চারদিকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের শেখ জায়েদ মসজিদ ও দিল্লী জামে মসজিদের অনুকরণে ব্যতিক্রমধর্মী দৃষ্টিনন্দন স্থাপনা করতে চাই। এটি নির্মিত হলে পৃথিবীর অন্যতম আকর্ষনীয় একটি মসজিদে রূপান্তরিত হবে।

যা স্থানীয় লক্ষাধিক মুসল্লিদের ঈদের নামাজ পড়তে সুবিধা হবে এবং পর্যটন নগরীর পর্যটকদের আকর্ষিত করবে। ইসলামী স্থাপত্য দেখে বিশ্বের শান্তিকামী মানুষেরা মুগ্ধ হবে। মসজিদটি দেশ-বিদেশের মূল্যবান ক্রিষ্টাল পাথর ও মার্বেল দিয়ে সাজানো হবে।

এর অর্থায়নে প্রায় ১০০ কোটি টাকা ব্যয় হবে, যা নিজসহ স্থানীয় দানবীর ও দেশ বিদেশের বিভিন্ন সূত্র থেকে সংগৃহীত হবে। এমপি কমল উক্ত মসজিদ নির্মাণে সকলের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেছেন।

পাঠকের মতামত: