কক্সবাজার, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪

খুলনা থেকে আসে অস্ত্র: বিনিময়ে কক্সবাজার থেকে যায় মাদক – র‌্যাব ১৫ অধিনায়ক

শাহেদ হোছাইন মুবিন :

খুলনা থেকে অস্ত্র আসে কক্সবাজার আর কক্সবাজার থেকে এর বিনিময়ে নিয়ে যাওয়া হয় বিভিন্ন মাদক। মাদক ও অস্ত্র ব্যবসায়ীদের মধ্যে রয়েছে এমনই আন্ত:জেলা সংযোগ। বিদেশী অস্ত্রসহ এই সিন্ডিকেটের ৩ সদস্যকে আটকের পর এমন তথ্য জানিয়েছে র‍্যাব-১৫ অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল এইচ এম সাজ্জাদ হোসেন।

 

র‍্যাবের দাবী, এবছরের সবচেয়ে বড় ইয়াবার চালান আটক করা হয়েছে। সোমবার টেকনাফের হ্নীলা সীমান্তবর্তী পূর্ব জাদিমুড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২ লাখ ইয়াবার ওই চালান আটক করে তারা।

 

মঙ্গলবার ( ১৯ মার্চ ২৪) দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাব-১৫ অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল এইচ এম সাজ্জাদ হোসেন বলেন, মিয়ানমারে চলমান আভ্যন্তরীণ সংঘর্ষের কারনে মাদক আসা কিছুটা কমে এসেছিলো গেলো মাসে। কিন্তু সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে ফের শুরু হয়েছে মাদক আসা।

 

র‍্যাব-১৫ অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল এইচ এম সাজ্জাদ হোসেন বলেন, প্রতি সপ্তাহে একেকটি সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ৫ থেকে ১০ লাখ করে ইয়াবা ঢুকছে সীমান্ত দিয়ে। যা বিভিন্ন এজেন্টের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়া হয় সারাদেশে।

 

র‍্যাব-১৫ অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল এইচ এম সাজ্জাদ হোসেন আরও বলেন , সীমান্ত দিয়ে এতো মাদক আসার বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে র‍্যাবের এ কর্মকর্তা বলেন, মৎস্য জীবিতার আড়ালে সিন্ডিকেট করে এপার ওপারে মাদক আসার কাজটা বেশি হয়ে থাকে।

 

র‌্যাব আরও জানায়, হ্নীলার সীমান্তবর্তী পূর্ব জাদিমুড়া এলাকায় মাদকের চালান নিয়ে অবস্থান করার খবর পেয়ে উক্ত স্থানে মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে। এসময় ইয়াসিন আরাফাত ওরফে কালু আটক করা হয়। আটককৃত  ইয়াসিন আরাফাত ওরফে কালু জানায় যে, পার্শ্ববর্তী দেশ হতে ক্রয়কৃত মাদকের মূল্য বাবদ নগদ অর্থ প্রদান এবং কখনো কখনো হুন্ডী ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে টাকা পরিশোধ করতো। এছাড়াও গ্রেফতারকৃত আবুল কাশেম একজন সন্ত্রাসী। সে তার আধিপত্য বিস্তারের জন্য দেশী-বিদেশী অস্ত্র-শস্ত্রের ভয়-ভীতি দেখিয়ে জনমনে আতংক সৃষ্টি, চাঁদা আদায় ও পরিকল্পিত হামলাসহ বিভিন্ন অপকর্মের সাথে জড়িত। একই সাথে সে দীর্ঘদিন ধরে মাদকের ব্যবসা করে আসছিল । এছাড়াও গ্রেফতারকৃত নুরুজ্জামান ও সাকির আহাম্মদ সাগর দু’জনই অস্ত্র ব্যবসায়ী। তারা খুলনা থেকে দেশী, বিদেশী অবৈধ অস্ত্র ও গোলাবারুদ নিয়ে কক্সবাজারের হোয়াইক্যং এর উনচিপ্রাং এলাকায় এসে সন্ত্রাসীদের কাছে অস্ত্র বিক্রি করতো।

 

আটককৃতরা হলেন, টেকনাফের জাদিমুড়া এলাকার ইমান হোসেনের হোসেনের ছেলে ইয়াসিন আরাফাত ওরফে কালু (২১), হোয়াইক্যংয়ের উনছিপ্রাং এলাকার মো. হোসাইনের ছেলে আবুল কাশেম (৩৮), খুলনার দাকোপ উপজেলার সুতারখালী ইউনিয়নের বাসিন্দা নওশের মোড়লের ছেলে নুরুজ্জামান (২৮), খুলনা সদর উপজেলার আবুল কালামের ছেলে সাকির আহাম্মদ সাগর (২৬)।

 

পৃথক অভিযানে তিন অস্ত্র ব্যবসায়ী ও এক মাদককারবারিকে আটক করার পর র‍্যাব জানায় অভিযানে তারা ১টি বিদেশি পিস্তল ও ২ রাউন্ড কার্তুজও উদ্ধার করে।

পাঠকের মতামত: