কক্সবাজার, বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১

বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত ১৮ কোটি ছাড়াল

করোনা সংক্রমণের প্রভাব ক্রমশ বেড়েই চলছে। একদিকে যেমন বাড়ছে সংক্রমণের সংখ্যা, তেমনই বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও। বিশ্বের প্রতিটি দেশই হিমশিম খাচ্ছে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ সামলাতে।

গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন প্রায় ১০ হাজার মানুষ। এবং এ রোগে নতুন আক্রান্ত হয়েছেন ৪ লাখ ২৪ হাজার ১৪২ জন।

এতে বিশ্বব্যাপী করোনায় মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৩৯ লাখ ৭ হাজারের বেশি এবং আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৮ কোটি ৩ লাখের ঘরে।

বৃহস্পতিবার (২৪ জুন) সকাল সাড়ে ৮টায় আন্তর্জাতিক পরিসংখ্যানভিত্তিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বব্যাপী এখন পর্যন্ত ১৮ কোটি ৩ লাখ ৬০ হাজার ৬০৬ জন প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে মারা গেছে ৩৯ লাখ ৭ হাজার ৩৬৪ জন। ইতোমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৬ কোটি ৫০ লাখ ৮০ হাজার ৮১৯ জন।

করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুতে এখন পর্যন্ত শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ৩ কোটি ৪৪ লাখ ৪৯ হাজারের কিছুটা বেশি। এর মধ্যে মারা গেছে ৬ লাখ ১৮ হাজার ২৯৪ জন। অপরদিকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ২ কোটি ৮৮ লাখ ৪৬ হাজার ৩০৪ জন।

এই তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ভারত। দেশটিতে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ৩ কোটি ৮২ হাজার ১৬৯। এর মধ্যে মারা গেছে ৩ লাখ ৯২ হাজার ১৪ জন। ইতোমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছে ২ কোটি ৯০ লাখ ৫৬ হাজার ৬০৯ জন।

তৃতীয় অবস্থানে থাকা ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ৮১ লাখ ৭০ হাজার ৭৭৮। এর মধ্যে মারা গেছে ৫ লাখ ৭ হাজার ২৪০ জন। যুক্তরাষ্ট্রের পর সবচেয়ে বেশি মৃত্যু দেখেছে ব্রাজিল। তবে দেশটিতে এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়ে উঠেছে ১ কোটি ৬৪ লাখ ৮৩ হাজার ৬৩৫ জন।

ফ্রান্সে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ৫৭ লাখ ৬২ হাজার ৩২২। এর মধ্যে মারা গেছে ১ লাখ ১০ হাজার ৮৬২ জন। ইতোমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছে ৫৫ লাখ ৮৩ হাজার ২১৪ জন।

তুরস্কে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ৫৩ লাখ ৮৭ হাজার ৫৪৫। দেশটিতে এখন পর্যন্ত মারা গেছে ৪৯ হাজার ৩৫৮। ইতোমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছে ৫২ লাখ ৪৮ হাজার ৮৬২ জন।

সংক্রমণ ও মৃত্যুতে এর পরেই রয়েছে রাশিয়া, যুক্তরাজ্য, আর্জেন্টিনা, ইতালি, কলম্বিয়া, স্পেন, জার্মানি, ইরান,পোল্যান্ড, মেক্সিকো, ইউক্রেন, পেরু, ইন্দোনেশিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং নেদারল্যান্ডসের মতো দেশগুলো।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর গত বছরের ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) করোনাকে ‘বৈশ্বিক মহামারি’ হিসেবে ঘোষণা করে। এর আগে একই বছরের ২০ জানুয়ারি বিশ্বজুড়ে জরুরি পরিস্থিতি ঘোষণা করে সংস্থাটি। বিশ্ব এখন করোনা মহামারির দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলা করছে।

পাঠকের মতামত: