কক্সবাজার, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‘পরিকল্পিত’ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় মামলা, আসামি অজ্ঞাত

কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবিরে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় অজ্ঞাত দুষ্কৃতকারীদের আসামি করে মামলা হয়েছে।

উখিয়া থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ আলী জানান, সোমবার রাতে উপজেলার বালুখালী ১১ নম্বর রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবিরের বি-৪ ব্লকের বাসিন্দা মো. সেলিম বাদী হয়ে মামলাটি করেন। মামলায় আসামির সংখ্যা উল্লেখ করা হয়নি।
মামলাটি তদন্ত করে দ্রুত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার চেষ্টা করা হবে জানান ওসি।

৫ মার্চ দুপুরে উখিয়ার বালুখালী ১১ নম্বর ক্যাম্পে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। পরে আগুন আরও কয়েকটি ব্লকে ছড়িয়ে পড়ে। তিন ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে ফায়ার সার্ভিস।

ঘটনার পরদিন অতিরিক্ত জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আবু সুফিয়ানকে প্রধান করে সাত সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়। কমিটি রোববার তদন্ত প্রতিবেদন দিয়েছে।

এ ঘটনায় ‘সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে পরিকল্পিত ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত নাশকতা’ বলে প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি।

তদন্ত কমিটি ১১ নম্বর ক্যাম্পের ১৭ নম্বর ব্লক থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে জানতে পারলেও সুনির্দিষ্টভাবে কারা এই আগুন লাগিয়েছে তা জানতে পারেনি।

অগ্নিকাণ্ডে প্রায় দুই হাজার ২০০ ঘর পুড়ে গেছে; এতে প্রায় ১৫ হাজার মানুষ আশ্রয়হীন হয়েছে। এ ছাড়া পানির পাইপলাইন, কালভার্ড, লার্নিং সেন্টারের মত প্রায় দুই হাজারের অবকাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, “রোহিঙ্গারা বলছেন, এটা পরিকল্পিত নাশকতা। নাশকতার নেপথ্যের কুশীলব হিসেবে তারা ভিন্ন ভিন্ন নাম বলেছেন। কিন্তু এদের শনাক্ত করা কঠিন। তাই মামলার পর তদন্ত করে তাদের শনাক্ত করার পক্ষে মত দিয়েছে তদন্ত কমিটি।”

এর আগে ২০২১ সালের ২২ মার্চ একই ক্যাম্পে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছিল। ওই সময় ১১ জনের মৃত্যু, ৫ শতাধিক আহত হয়। পুড়ে গিয়েছিল নয় হাজারের বেশি ঘর।

পাঠকের মতামত: