কক্সবাজার, মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১

২৫ মে থেকে চীনের টিকার প্রথম ডোজ শুরু

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, আগামী ২৫ মে থেকে চীনের টিকার প্রথম ডোজ দেয়া শুরু হবে। সোমবার দুপুরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে তিনি এ কথা জানান।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, চীনের যে ভ্যাকসিন এসেছে সেটির প্রথম ডোজ আগামী ২৫ মে থেকে দেয়া শুরু হবে। এ ছাড়া আমরা রাশিয়া, চীন, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশের সঙ্গে কথা বলেছি ভ্যাকসিনের জন্য। ফাইনাল কিছু হলে জানতে পারবেন। দ্বিতীয় ডোজের জন্য ভারত, যুক্তরাজ্যের সঙ্গে কথা বলছি। প্রধানমন্ত্রী নিজেও চেষ্টা করেছেন। ভারতের কাছে অর্ডার আছে ৩ কোটি, পেয়েছি ৭০ লাখ। দ্বিতীয় ডোজ নিয়ে আমরা চিন্তিত।

তিনি বলেন, যেকোনো ভ্যাকসিন তৈরি করতে হলে ওষুধ প্রশাসনের আবেদন লাগে। যারা আবেদন করে যাচাই-বাছাই করে। আমাদের সিদ্ধান্ত ক্রয়ও করব, প্রয়োজনে উৎপাদন করব। যাদের উৎপাদনের সক্ষমতা আছে তাদের এগিয়ে আসতে হবে। প্রথমে তাদের আবেদন দেখে আমাদের কাছে আসতে হবে। তারপর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। সেরকম কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলাপ করে সিদ্ধান্ত নেবে। আমাদের কাছে প্রতিবেদন আসলে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। টিকা ক্রয় করার চেষ্টা থাকবে, তাহলে তাড়াতাড়ি হবে। টিকা তৈরি করলে দীর্ঘসময় লাগবে। উৎপাদন করলেও পাঁচ-ছয় মাসের আগে করা সম্ভব না।

মন্ত্রী বলেন, মানুষের মধ্যে মাস্ক ব্যবহারের প্রবণতা বেড়েছে। মানুষ আগের চেয়ে অনেক সচেতন হয়েছে। ফলে সংক্রমণ কমেছে। অনেকে এই অবস্থায় আবেগী হয়ে বাড়ি গেছেন। তাদের প্রতি অনুরোধ, বিশেষ প্রয়োজন না হলে তারা যেনো লকডাউন শেষ হওয়ার আগে ঢাকায় না ফেরেন।

তিনি বলেন, সংক্রমণের হার অনেক বেড়ে গিয়েছিল। বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়ার কারণে সেটার হার কমেছে। এ বিষয়ে সবার সম্মিলিত সহযোগিতা পেলে সংক্রমণ আর মৃত্যুহার আরও কমবে। বর্তমানে আমাদের সংক্রমণের অনুপাতে মৃত্যুহার হচ্ছে ২০ থেকে ২৫ শতাংশ। কিছুদিন আগেও এটার হার ছিল অনেক বেশি।

মন্ত্রী বলেন, ভারতে প্রতিদিন গড়ে ৪ হাজার মানুষ করোনায় মারা যাচ্ছে। আর সংক্রমিত হচ্ছে সাড়ে ৩ থেকে ৪ লাখ মানুষ। ভারতের ভ্যারিয়েন্ট বাংলাদেশে তেমন ছড়ায়নি। আমরা বর্ডার সিল করে দিয়েছি।

প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে যেসব চিকিৎসক, নার্স, স্বস্থ্যকর্মীরা হাসপাতালে করোনা রোগীদের চিকিৎসা দিয়েছেন, সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান তিনি।

পাঠকের মতামত: