কক্সবাজার, শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১

জেনে নিন অতিরিক্ত কফি খেলে কী হতে পারে

 

কফি খেতে অনেকেই ভীষণ ভালোবাসেন। অনেকেই দিনের শুরুটা এক কাপ দিয়ে করেন। এছাড়াও সারাদিনে যখনই মন চায় কিংবা এনার্জিতে ঘাটতি হয়েছে বলে মনে হয়, তখনই এক কাপ কফি খেয়ে নিই।

দিনে অন্তত সাত থেকে আট কাপ কফি হামেশাই খেয়ে থাকেন বহু মানুষ। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, কফি শরীরের অনেক উপকারই করে। কিন্তু অত্যধিক মাত্রায় কফি পান মোটেই স্বাস্থ্যকর নয়। বরং শরীরে বেশ ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে পারে। অত্যধিক কফি পান আমাদের শরীরের কী কী ক্ষতি করে, তা জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

ক্লান্ত করে দেয়
সকাল থেকে রাত পর্যন্ত যখন মন চাইছে, তখনই কফি খেয়ে ফেলছেন? এতে এনার্জির আসার পরিবর্তে শরীর আরও ক্লান্ত হয়ে যায়। আর খালি পেটে একেবারেই কফি খাওয়া উচিত নয় বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা জানাচ্ছেন, অত্যধিক পরিমাণে কফি খেলে আমাদের শরীরে উত্তেজনা বা উদ্বেগ বেশি পরিমাণে তৈরি হয়। কফিতে থাকা উপাদান মস্তিস্ককে ক্লান্ত করে দেয়। ফলে যতই আপনি এনার্জি পাওয়ার জন্য কফি খান না কেন, অত্যধিক পরিমাণে কফি খেলে তা এনার্জি তো বাড়াচ্ছেই না উল্টো আপনাকে আরও বেশি ক্লান্ত করে দিচ্ছে। তাই বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ, সারাদিনের দুই কাপের বেশি কফি খাওয়া একেবারেই উচিত নয়।

আরও পড়ুন: অতিরিক্ত চিনিতে হতে পারে মারাত্মক যে সব রোগ

অনিদ্রার সমস্যা
কফি আমাদের শরীর এবং মস্তিষ্ককে সচল রাখতে সাহায্য করে। এর ফলে অনিদ্রার সমস্যা দেখা দেয়। শিক্ষার্থী থেকে চাকরিরত অনেকেই বেশিক্ষণ জেগে থাকার জন্য কাপের পর কাপ কফি খেয়ে থাকেন। যা আসলে শরীরে অনিদ্রার সমস্যা তৈরি করে।

নেশা হয়ে যায়
অ্যালকোহলের অভ্যাস ছাড়াও চেয়েও কঠিন কফির নেশা ছাড়ানো। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, একবার কফি খাওয়ার অভ্যাস হয়ে গেলে, তা থেকে বেরিয়ে আসা খুবই মুশকিল হয়ে দাঁড়ায়।

গ্যাসট্রিকের সমস্যা
সকালে খালি পেটে কফি খেলে পাকস্থলীতে হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড তৈরি হয়। পাকস্থলীতে প্রচুর পরিমাণে এই অ্যাসিড জমলে হজমে সমস্যা হতে পারে। কফির বীজে ক্যাফেইন ও অন্যান্য অম্লীয় উপাদান থাকে, যা পাকস্থলীর গায়ে ক্ষত সৃষ্টি করে আলসার, গ্যাসট্রিকের সমস্যা বাড়িয়ে দিতে পারে।

সূত্র: এবিপি আনন্দ

পাঠকের মতামত: