কক্সবাজার, মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২

মদ বিক্রিতে পশ্চিমবঙ্গে রেকর্ড, সাড়ে তিন মাস আগেই লক্ষ্যপূরণ

ভারতে ২০২০-২১ অর্থবর্ষে পশ্চিমবঙ্গ আবগারি দফতরের রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য ছিল ১২ হাজার কোটি টাকা। কিন্তু গত কয়েক বছর ধরে নিজের রেকর্ড নিজেই ভেঙে চলা আবগারি দফতর ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহেই সেই লক্ষ্য ছুঁয়ে ফেলেছে। দেশটির আবগারি দফতর সূত্রে খবর, চলতি আর্থিক বছরের শেষে লক্ষ্যমাত্রার থেকে অনেকটাই বেশি আয় হবে।

তবে এ বারের আয় বৃদ্ধি ২০১৭-১৮ অর্থবর্ষের রেকর্ড ছুঁতে পারবে না। সে বার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৫৭৮১.৩৮ কোটি টাকা। পরে তা কমিয়ে ৪,৭৮৮ কোটি করা হয়েছিল। কিন্তু সেই অর্থবর্ষের শেষে দেখা যায় প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে আয়। পশ্চিমবঙ্গে ওই বছরে আবগারি দফতরের মোট আয় ছিল ৯৩৪০.০৫ কোটি টাকা।

আবগারি দফতরের কর্তাদের দাবি, গত পাঁচ বছর ধরেই আবগারি দফতরের উপরে রাজ্যের আর্থিক ব্যবস্থার ভরসা বেড়েছে। কারণ, আয় বাড়ছে। ২০১৫-১৬ অর্থবর্ষেও বছরের শুরুতে ঠিক করা লক্ষ্যমাত্রা ছুঁতে পারেনি দফতর। কিন্তু পরিস্থিতি বদলে যায় ২০১৭ সাল থেকে।

সেই বছরের জানুয়ারি মাস থেকেই পশ্চিমবঙ্গে দেশি ও বিদেশি মদের মূল ডিস্ট্রিবিউটার হিসেবে কাজ শুরু করে ওয়েস্ট বেঙ্গল স্টেট বেভারেজেস কর্পোরেশন (বেভকো)। আর তখন থেকেই আবগারি দফতরে আয় লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছে। প্রথম বছর ২০১৭-১৮ অর্থবর্ষে দফতরের রাজস্ব আয় হয় ৯৩৪০.০৫ কোটি টাকা। এর পরের বছর ২০১৮-১৯ অর্থবর্ষে সেটাই বেড়ে হয় ১০,৫৯০.৭২ কোটি টাকা। সে বার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১০,৫০৩.৪১ কোটি টাকা।

একটা সময়ে রাজ্য আবগারি দফতর ৫০০ কোটি টাকা লক্ষ্যমাত্রা নিয়েও তা ছুঁতে পারত না। কিন্তু এখন প্রতি বছরই বেড়ে চলেছে আয়। প্রতি বারই লক্ষ্য ছাপিয়ে আয় হচ্ছে কী ভাবে? এর উত্তরে আবগারি দফতরের এক শীর্ষকর্তা বলেন, ‘‘আমরা মদ্যপানে উৎসাহ দিচ্ছি এমনটা ভাবা ঠিক হবে না। আসলে গত কয়েক বছরে পশ্চিমবঙ্গে অবৈধ মদ বিক্রি উল্লেখযোগ্য ভাবে কমানো গিয়েছে। যার প্রভাব দেখা গিয়েছে বৈধ মদ বিক্রির বৃদ্ধিতে। দফতরের এই উদ্যোগের ফলে এক দিকে যেমন মদ থেকে বিষক্রিয়ার মতো ঝুঁকি কমেছে তেমনই সরকারের কর ফাঁকি দেওয়াও কমেছে।’’

পাঠকের মতামত: