কক্সবাজার, রোববার, ২০ জুন ২০২১

মোট আক্রান্ত ২ হাজার ১৪ জন

শনিবার কক্সবাজারে রোহিঙ্গাসহ ৪৯ জন করোনা রোগী শনাক্ত

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে কক্সবাজার প্রতিদিনই গড়ে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে অর্ধশতাধিক মানুষ। এর মধ্যে গতকাল শুক্রবার ছিলো সর্বোচ্চ শতাধিক (১১৭ জন) শনাক্ত হন। তবে প্রতিদিন অর্ধ শত’র উপরে আক্রান্ত থাকলেও গত এক সপ্তাহে কমেছে মৃত্যুর হার। যা কক্সবাজারবাসীকে কিছুটা হলেও দিচ্ছে স্বস্তি। তবে রেড জোন কক্সবাজারে করোনাক্রান্তের সংখ্যা ২ হাজার ছাড়িয়ে গেছে।

শনিবার ১ রোহিঙ্গা সহ আরও ২৮ জন নিয়ে জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ১৪ জন। তবে গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় নতুন করে ২৮ জন পজেটিভ শনাক্ত হলেও মৃত্যু ঘটেনি কারো। মৃতের সংখ্যা ৩০ জনেই সীমাবদ্ধ রয়েছে।

শনিবার সন্ধ্যায় কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. অনুপম বড়ুয়া জানিয়েছেন, গত ২৪ ঘন্টায় পিসিআর ল্যাবে ২২৪টি নমুনা পরীক্ষা হয়। এর মধ্যে ৪৯টি নমুনার ফল আসে পজিটিভ।যার মধ্যে ৪৭টিই নতুন নমুনা। আর জেলায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছে এক রোহিঙ্গা সহ ২৮ জন।

আক্রান্তদের মধ্যে সদরের সর্বাধিক ১৪ জন, উখিয়ার-২ জন, মহেশখালীর-২ জন,চকরিয়ায়-১ জন,রামুর-৪ জন,পেকুয়ার-১জন,কুতুবদিয়ার-৩জন এবং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ১ জন । জেলার বাইরে বান্দরবানের ১৮ জন এবং সাতকানিয়ার ১জন নতুন পজিটিভ অছেন।এছাড়া ২টি ফলোআপ নমুনা রয়েছে। বাকী ১৭৫টি নমুনা নেগেটিভ আসে।

এনিয়ে জেলায় ৮০তম দিনে করোনা রোগীর সংখ্যা দাড়াল মোট ২হাজার ১৪ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৫০৪জন। আর মারা গেছেন ২৯ জন। এছাড়া ৪৬ রোহিঙ্গা করোনায় আক্রান্ত ছাড়াও ৩ জনের মৃত্যূ হয়েছে।

কক্সবাজার জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের প্রতিবেদন সূত্রে জানা গেছে, ২০জুন পর্যন্ত কক্সবাজার জেলায় করোনার হটস্পট সদর উপজেলায় আক্রান্ত এবং মৃত্যু সবচেয়ে বেশি। এখানে মোট আক্রান্ত‘র সংখ্যা ৯২২ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১২৪ জন। এছাড়াও দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা চকরিয়া উপজেলায় ২৮৬ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১৩৪ জন। আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে উখিয়া।এ উপজেলায় এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ২৬৮ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৬৮জন। এর পরে রয়েছে রামুতে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ১৭২ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৩৮জন। পেকুয়ায় পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ৮৯ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৫০জন।মহেশখালীতে এ পর্যন্ত আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ৭৪ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৪১ জন। টেকনাফে পর্যন্ত আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ১৬৯ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৪৬জন এবং কুতুবদিয়ায় পর্যন্ত আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ১৭ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ২ জন।

পাঠকের মতামত: