কক্সবাজার, শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

নিহত মেজর রাশেদের পিতা এরশাদ খান উখিয়ার ইউএনও ছিলেন

গত ৩১ জুলাই রাত্রে নিহত হওয়া সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো: রাশেদ খান (বিএ-৬৯৩১) এর পিতা এরশাদ খান কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। ১৯৮৭-৮৮ সালে তিনি উখিয়ায় ইউএনও এর দায়িত্বে ছিলেন। বিশ্বস্ত সুত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এরশাদ খান সর্বশেষ অর্থ মন্ত্রণালয়ের উপসচিব থাকাবস্থায় অবসরে যান। যশোরের বীর হেমায়েত সড়কের বাসিন্দা এরশাদ খান ছিলেন ১৯৭১ এর রণাঙ্গনের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা।

গত ৩১ আগস্ট রাত্রে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ রোডে এরশাদ খানের সন্তান সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো: রাশেদ খান (৩৬) তাঁর কক্সবাজারমূখী প্রাইভেট কারটি নিয়ে টেকনাফের বাহারছরা শামলাপুর পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের চেকপোস্টে পৌঁছালে গাড়িটি পুলিশ থামিয় দেয়। তখন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো: রাশেদ খান উপর দিকে তার হাততুলে তার কার থেকে বের হওয়ার সাথে সাথে তার কোন কথা না কর্ণপাত নাকরে তাঁকে তদন্ত কেন্দ্রর ইনচার্জ ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলী গুলি করে হত্যা করে বলে সেনা সদর থেকে গণমাধ্যমে প্রেরিত বক্তব্যে উল্লেখ করা হয়।

এ হত্যাকান্ডের ঘটনা তদন্তে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন-যুগ্ম সচিব) মোহাম্মদ মিজানুর রহমান’কে আহবায়ক করে তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। রোববার ২ আগস্ট স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এ কমিটি করা হয়। ৪ সদস্য কমিটিকে সাত কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলেছে-স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ।

এ ঘটনায় পুলিশের টেকনাফের বাহারছরা তদন্ত কেন্দ্রর ইনচার্জ ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলী সহ ২০ পুলিশ সদস্যকে ক্লোজড করা হয়েছে। রোববার ২ আগস্ট সকালে তাদেরকে ক্লোজড করে পুলিশ লাইনে নিয়ে আসা হয়। একইসাথে বাহারছরা তদন্ত কেন্দ্রে কক্সবাজার জেলা পুলিশ থেকে নতুন পুলিশ সদস্য নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন বিপিএম (বার) গণমাধ্যমকে বলেছেন, ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থেই এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

পুলিশের গুলিতে খুন হওয়া অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো: রাশেদ খান ঢাকাস্থ উত্তরা রাজউক মডেল কলেজ থেকে কৃতিত্বের সাথে এইসএসসি পাশ করে ৫০তম বিএমএ লং কোর্সের একজন কর্মকর্তা হিসাবে সেনাবাহিনীতে যোগদান করেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির নিরাপত্তায় নিয়োজিত বাংলাদেশের এলিট ফোর্স এসএসফ (স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্স) এ একজন বাচাইকৃত চৌকস সেনা অফিসার হিসাবে কর্মরত ছিলেন। ২০১৮ সালে মেজর পদে কর্মরত থাকা অবস্থায় সিনহা মো: রাশেদ সেনাবাহিনী থেকে স্বেচ্ছায় অবসর নেন। ঢাকাস্থ স্টামফোর্ট ইউনিভার্সিটির ফ্লিম এন্ড মিডিয়া বিভাগ থেকে জাস্ট গো নামক একটি কোম্পানির পক্ষে ইউটিউব চ্যানেলে দেওয়ার জন্য প্রামাণ্য তথ্য চিত্র নির্মানের লক্ষ্যে গত ৩ জুলাই থেকে তিনি ও আরো ৪ জন কক্সবাজারের হিমছড়ি নিলীমা রিসোর্টে অবস্থান করে কাজ করছিলেন।

পাঠকের মতামত: