কক্সবাজার, শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

‘তাই না দেখে ভোঁদড় নাচে’

 

‘না নিয়ে গেল বোয়াল মাছে/তাই না দেখে ভোঁদড় নাচে/ওরে ভোঁদড় ফিরে চা/খোকার নাচন দেখে যা।’ ছোটবেলায় পড়া সেই ছড়ার কথা হয়তো মধ্যবয়সীরা ভুলে যাননি। কিন্তু আজকের যুগের শিশুরা কি ছড়ার সেই প্রাণীটিকে চেনে? কিশোর-যুবারাও হয়তো ভ্রুকুঁচকে বলবেন ভোঁদড় আবার কী?

এই বাংলাদেশে দুই দশক আগেও যাঁরা গ্রামে বড় হয়েছেন, তাঁরা ভোঁদড় দেখেছেন। গ্রামের পুকুর থেকে মাছ ধরে খেতে আসত ভোঁদড়। মাছ এদের খুবই প্রিয় খাদ্য। গ্রামাঞ্চলে ভোঁদড়কে বলা হতো ‘উদবিলাই’ বা ‘উদবিড়াল’।

এরপর অনেক বছর ভোঁদড়ের দেখা নেই। ২০১৪ সালে রাজশাহী শহরসংলগ্ন পদ্মার চরে এক জোড়া ভোঁদড়ের দেখা মেলে। তবে প্রথম ছবি তুলতে পারি ২০১৬ সালে। এরপর প্রায় প্রতিবছরই এক-দুইবার পদ্মার কিছু জায়গায় দেখতে পাই কৌতূহলী এই সুন্দর প্রাণীটাকে। রাজশাহীর পদ্মার চরে মাঝে মাঝে ঘুরে বেড়ায় এক জোড়া সুন্দর ভোঁদড়।

ভোঁদড় নামের এই প্রাণীটি আধা জলচর ও স্তন্যপায়ী মৎস্যভুক। শারীরিক বৈশিষ্ট্যের ভিত্তিতে উদবিড়াল নখযুক্ত ও নখহীন—দুই রকমের হয়ে থাকে। পৃথিবীতে মোট সাত প্রজাতির ভোঁদড় পাওয়া গেলেও আমাদের দেশে বিপন্ন অবস্থায় মোট তিন প্রজাতি টিকে আছে বলে জানা যায়। এদের শরীর কালচে বাদামি, পানি প্রতিরোধক ঘন লোমে ঢাকা। মাথা ও শরীরের মাপ ৬৫-৭৫ সেন্টিমিটার। গলার দিকে একটু সাদা। লেজ ৪০-৪৫ সেন্টিমিটার চ্যাপ্টা, ফলে সাঁতারে বেশ সুবিধা। কান ছোট, পায়ের পাতা হাঁসের পায়ের মতো চ্যাপ্টা। ভোঁদড় ওজনে ৭-১১ কেজি হয়।

পানিতে বাস করার কারণে শরীরের অঙ্গপ্রত্যঙ্গের পরিবর্তনও হয়। লম্বা শরীর, তেলতেলে চামড়া, মাংসল লেজ, হাঁসের পায়ের মতো পায়ের পাতা, ছোট কান, চওড়া মাথা—সবই পানিতে বিচরণের উপযোগী। বরফাবৃত মেরু অঞ্চলের সিল মাছের মতো দেখতে ভোঁদড় খুব ভালো সাঁতার কাটতে পারে। এরা এক ডুব দিয়ে প্রায় আধা কিলোমিটার পর্যন্ত যেতে পারে। ধারালো দাঁত দিয়ে মাছ শিকার করতে এদের জুড়ি নেই।

বাংলাদেশের উপকূলবর্তী বিশেষ করে সুন্দরবনের আশপাশের লোকালয়ে এবং নড়াইল জেলার কিছু মানুষ ভোঁদড়কে পোষ মানিয়ে মাছ ধরার কাজে ব্যবহার করে। এসব এলাকায় ভোঁদড়কে ধাড়িয়া বা ধেড়েও বলে।

ভোঁদড় দিয়ে মাছ ধরার কাজটিও বেশ মজার। মাছ শিকারের জন্য জেলেরা বাড়িতে ভোঁদড় লালন-পালন করে। মাছ ধরার সময় প্রতিটি জেলেনৌকার এক প্রান্তে ভোঁদড়ের জন্য আলাদা করে খাঁচা বানানো থাকে। মাছ ধরার সময় খাঁচার ডালা খুলে দেওয়া হয়। জেলেরা নৌকায় বাঁধা জাল নদীতে ফেলে ভোঁদড় ছেড়ে দেন। এ সময় লাঠির সঙ্গে এদের শরীর এমনভাবে বাঁধা থাকে, যাতে ছুটে যেতে না পারে। নৌকা নদীর তীরে আসতে থাকে আর ভোঁদড়ের তাড়া খেয়ে মাছগুলো জেলেদের জালে এসে ধরা পড়ে। প্রতিটি ভোঁদড় বছরে সাত থেকে আটবার বাচ্চা দেয়। অন্তত ১০ বছর পর্যন্ত এরা বেঁচে থাকে। পূর্ণবয়স্ক একেকটি ভোঁদড় ৭ থেকে ১২ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রিও হয়। তবে জলাভূমি ধ্বংসের সঙ্গে সঙ্গে এই সুন্দর প্রাণীটিও বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। এদের সংরক্ষণে এখনই উদ্যোগ নেওয়া খুব জরুরি।

পাঠকের মতামত: