কক্সবাজার, মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২

স্ত্রীর সঙ্গে সৌহার্দ্যপূর্ণ আচরণের তাগিদ

 

স্ত্রী জীবনের অত্যন্ত বিশ্বস্ত বন্ধু। সুখ-দুঃখের সঙ্গী। পুণ্যবতী স্ত্রী পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম নিয়ামত। রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘সমগ্র পৃথিবী মানুষের ভোগ্য বস্তু (নিয়ামত) আর পৃথিবীস্থ ভোগ্য বস্তুসমূহের মধ্যে সর্বোত্তম হলো পুণ্যবতী স্ত্রী।’(নাসায়ি, হাদিস: ৩২৩২)

তাই তাদের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণ করা উচিত। তাদের সাধ্যমতো সময় দেওয়া উচিত। সম্ভব হলে পারিবারিক কাজে সহযোগিতা করা উচিত। রাসুলুল্লাহ (সা.) ব্যক্তিজীবনে অবসর সময়ে পরিবারবর্গকে পারিবারিক কাজে সহায়তা করতেন। ব্যক্তিগত কাজে তিনি অন্যের সহযোগিতা খুব কমই নিতেন। নিজের কাজ নিজেই করতেন। এ ব্যাপারে হজরত আসওয়াদ (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি একদা আয়েশা (রা.)-কে জিজ্ঞেস করলাম যে রাসুল (সা.) ঘরের মধ্যে কী কাজ করতেন? উত্তরে তিনি বলেন, তিনি ঘরের কাজে ব্যস্ত থাকতেন, অর্থাৎ গৃহস্থালি কাজে পরিবার-পরিজনের সহযোগিতায় থাকতেন। যখন নামাজের সময় হতো, নামাজে চলে যেতেন। (বুখারি, হাদিস: ৬৭৬)

উভয় জাহানের বাদশাহ সত্ত্বেও রাসুল (সা.) যে কতটা নমনীয় ছিলেন এবং কত সাধারণ কাজও স্বহস্তে করেছেন, বিভিন্ন হাদিসের স্বর্ণখচিত শব্দে তার বিস্তর ধারণা পাওয়া যায়। ইরশাদ হচ্ছে, কাসেম (রহ.) বলেন, আমি একদা আয়েশা (রা.)-কে জিজ্ঞেস করলাম, রাসুল (সা.) ঘরের মধ্যে কী কাজ করতেন? উত্তরে তিনি বলেন, তিনি অন্যান্য মানুষের মতোই একজন ছিলেন, নিজের কাপড়ের উকুন পরিষ্কার করতেন, বকরির দুধ দোহন করতেন এবং নিজের কাজ নিজেই করতেন। (মুসনাদে আহমদ: ২৬১৯৪)

অন্য বর্ণনায় আছে, আয়েশা (রা.) বলেন, তিনি স্বীয় কাপড় নিজেই সেলাই করতেন, নিজের জুতা নিজেই মেরামত করতেন এবং সাধারণ মানুষের মতোই ঘরের কাজকর্ম করতেন। (মুসনাদে আহমদ: ২৪৯০৩)

পরিবারের প্রতিটি কাজই আমাদের নিজেদের কাজ, যা আমরা ভাগাভাগি করে করলে একদিকে যেমন পরিবারের সবার মধ্যে শান্তি-শৃঙ্খলা, ভালোবাসা বজায় থাকবে, অন্যদিকে রাসুল (সা.)-এর একটি বিশাল সুন্নতও উজ্জীবিত হবে, যা আমাদের সমাজ-সংসার থেকে বিলুপ্ত হতে চলেছে। তা ছাড়া সুন্নতের নিয়তে পরিবার কেন, যে কারো খিদমত করলেই সার্বক্ষণিক সওয়াব লিপিবদ্ধ হতে থাকে। ইরশাদ হচ্ছে, যে ব্যক্তি উম্মতের অধঃপতনের সময় একটি সুন্নতকে আঁকড়ে ধরে, সে ১০০ শহীদের সওয়াব পাবে। (আল কামেল: ৩/১৭৪)

কোনো অবস্থায়ই তাদের সঙ্গে রূঢ় আচরণ করা উচিত নয়। তাদের শারীরিক বা মানসিক নির্যাতন থেকে বিরত থাকতে হবে। কারণ এর ফলে একদিকে যেমন নারীর শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব ফেলে, অন্যদিকে তা পরিবার, সন্তানাদি এবং অর্থনীতির ওপরও নেতিবাচক প্রভাব ফেলে।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) কর্তৃক পরিচালিত ২০১১ সালের জরিপ মতে, ৮৭ শতাংশ নারী স্বামীর মাধ্যমে কোনো না কোনো ধরনের নির্যাতনের শিকার হন। জাতিসংঘের বিশেষ রিপোর্ট মতে, বাংলাদেশে ৬০ শতাংশ বিবাহিত নারী জীবনে কোনো না কোনো সময়ে স্বামী কিংবা তাঁর পরিবার বা উভয়ের দ্বারা নির্যাতিত হন।

অথচ এটি ইসলামের শিক্ষা নয়। মুমিনের উচিত পারিবারিক জীবনেও রাসুল (সা.)-এর আদর্শকে আঁকড়ে ধরা। প্রিয় নবী (সা.) কখনো কোনো নারীর গায়ে হাত তোলেননি।

আয়েশা (রা.) বলেন, রাসুল (সা.) কখনো তাঁর কোনো খাদেমকে অথবা তাঁর কোনো স্ত্রীকে মারধর করেননি এবং নিজ হাতে অপর কাউকেও প্রহার করেননি। (ইবনে মাজাহ, হাদিস: ১৯৮৪)

অন্য বর্ণনায় আছে, রাসুল (সা.) তাঁর স্বহস্তে কোনো দিন কাউকে আঘাত করেননি, কোনো নারীকেও না, সেবককেও না, আল্লাহর রাস্তায় জিহাদ ছাড়া। আর যে তাঁর অনিষ্ট করেছে, তার থেকেও প্রতিশোধ নেননি। তবে আল্লাহর মর্যাদা ক্ষুণ্ন হয় এমন বিষয়ে তিনি তাঁর প্রতিশোধ নিয়েছেন। (মুসলিম, হাদিস: ৫৯৪৪)

মহান আল্লাহ সবাইকে ইসলামের নির্দেশনাগুলো মেনে চলার তাওফিক দান করুন। সূত্র: কালের কন্ঠ

পাঠকের মতামত: