কক্সবাজার, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪

সেঞ্চুরি ছুঁয়ে মেসির হ্যাটট্রিক, আর্জেন্টিনার গোল উৎসব

জাদুকরী ফুটবলে মুগ্ধতা ছড়ালেন লিওনেল মেসি। দেশের প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে স্পর্শ করলেন আন্তর্জাতিক ফুটবলে গোলের তিন অঙ্ক। সেখানেই না থেমে উপহার দিলেন দুর্দান্ত এক হ্যাটট্রিক। আগ্রাসী ফুটবলে পুঁচকে কিরাসাওকে গোল বন্যায় ভাসাল কাতার বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়নরা।

সান্তিয়াগো দেল এস্তেরোর মাদ্রে দে সিউদাদেসে বাংলাদেশ সময় বুধবার সকালে প্রীতি ম্যাচে ৭-০ গোলে জিতেছে আর্জেন্টিনা। তাদের অন্য চার গোলদাতা নিকোলাস গনসালেস, এনসো ফের্নান্দেস, আনহেল দি মারিয়া ও গনসালো মনতিয়েল।

ডিসেম্বরে বিশ্বকাপের ফাইনালে ফ্রান্সকে হারিয়ে শিরোপা জয়ের পর এ মাসেই প্রথম মাঠে নামে লিওনেল স্কালোনির দল। গত শুক্রবার পানামাকে ২-০ গোলে হারানোর পর এবার তারা প্রতিপক্ষকে কোনো সুযোগই দেয়নি।

ম্যাচ শুরুর তৃতীয় মিনিটেই নিশ্চিত গোলের সুযোগ নষ্ট হয় আর্জেন্টিনার। ডান দিক থেকে সতীর্থের গোলমুখে বাড়ানো বলে কেবল একটা টোকা দেওয়ার দরকার ছিল মার্তিনেসের, কিন্তু তালগোল পাকান তিনি।

১০ মিনিট পরই সেঞ্চুরি হয়ে যেতে পারতো মেসির। তবে বক্সের ঠিক বাইরে থেকে তার জোরাল শট ঝাঁপিয়ে কর্নারের বিনিময়ে ফেরান কিরাসাও গোলরক্ষক। পরের দুই মিনিটে আরও দুটি ভালো আক্রমণ করে র‌্যাঙ্কিংয়ের দুই নম্বর দলটি; কিন্তু মার্তিনেস কিংবা গনসালেস, কেউ শট লক্ষ্যে রাখতে পারেননি।

সেঞ্চুরি ছুঁয়ে মেসির হ্যাটট্রিক, আর্জেন্টিনার গোল উৎসব
মেসির শততম গোলের জন্য অপেক্ষা অবশ্য দীর্ঘ হয়নি। ২০তম মিনিটে জিওভানি লো সেলসোর পাস বাঁ পায়ে ধরে বক্সে একজনের বাধা এড়িয়ে ডান পায়ের শটে দলকে এগিয়ে নেন পিএসজি তারকা।

তিন মিনিট পরই ব্যবধান দ্বিগুণ করে তারা। হেরমান পেস্সেইয়ার হেড গোললাইনে প্রতিহত হওয়ার পর ফিরতি বল হেডেই জালে পাঠান ফিওরেন্তিনা ফরোয়ার্ড গনসালেস।

প্রতিপক্ষের প্রবল চাপ সামলে পাল্টা আক্রমণে ওঠার সুযোগই পাচ্ছিল না কিরাসাও। তিনবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের আটকে রাখার কোনো উপায়ই যেন খুঁজে পাচ্ছিল না ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ের ৮৬ নম্বর দলটি। পাঁচ মিনিটে আরও তিনবার জালে বল পাঠিয়ে বিশাল জয়ের দিকে এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা।

৩৩তম মিনিটে গনসালেসের পাস পেয়ে বাঁ পায়ের শটে নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেন মেসি। চার মিনিট পর লো সেলসোর থ্রু বল দুই ছোঁয়ায় নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বক্সে ঢুকে জোরাল নিচু শটে হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন সাতবারের বর্ষসেরা ফুটবলার।

জাতীয় দলের হয়ে ১৭৪ ম্যাচে ১০২ গোল করলেন মেসি।

ওই দুই গোলের মাঝে এনসো ফের্নান্দেসের গোলেও জড়িয়ে মেসির নাম। তার ছোট কাটব্যাক পেয়েই বক্সের মুখ থেকে জোরাল শটে স্কোরলাইনে নাম লেখান চেলসি মিডফিল্ডার।

প্রথমার্ধে মোট ১৫টি শট নিয়ে ১০টি লক্ষ্যে রাখা আর্জেন্টিনা বিরতির পরও আক্রমণাত্মক শুরু করে। তবে শুরুর তুলনায় তাদের খেলায় গতি কম ছিল। পাল্টা আক্রমণে ওঠার চেষ্টা করতে থাকে সফরকারীরা, যদিও সুবিধা করতে পারেনি তারা।

৫৪তম মিনিটে মার্তিনেস এবং পরের মিনিটে গনসালেস ভালো সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেননি। ৭১তম মিনিটে মেসির থ্রু বল বক্সে পেয়ে গোলরক্ষক বরাবর শট নেন গনসালেস।

লো সেলসোর বদলি নামা দি মারিয়া ৭৮তম মিনিটে সফল স্পট কিকে ব্যবধান আরও বাড়ান। তার শটেই বল বক্সে কুকো মার্তিনার হাতে লাগলে পেনাল্টি পায় আর্জেন্টিনা।

আর ৮৭তম মিনিটে দিবালার পাস পেয়ে শেষ গোলটি করেন মনতিয়েল। গ্যালারি ঠাসা সমর্থকদের উল্লাসে ভাসিয়ে মাঠ ছাড়েন মেসি-মার্তিনেসরা।

পাঠকের মতামত: