কক্সবাজার, বুধবার, ৪ আগস্ট ২০২১

‘বেড়াতে যাওয়া কথা বলে আব্বুকে অপহরণ করা হয়’

ওয়াহিদ রুবেল::

বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে রুহুল আমিন (২০ ) প্রকাশ আব্বু নামে এক যুবকে অপহরণ করে একটি চক্র। এরপর থেকে মুক্তিপনের দাবি করে নির্যান চালায় নয়টি দিন। দশদিনের মাথায় মঙ্গলবার (২০জুলাই) রাত সাড়ে তিনটার দিকে অপহৃত যুবককে টেকনাফ হোয়াইক্যং উনছিপ্রাং আমতলীর গহীন জঙ্গল থেকে উদ্ধার করেছে র‌্যাব-১৫ এর একটি দল।

এ সময় অপহণের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে অপহরণকারী চক্রের দুই সদস্যকে আটক করা হয়েছে।

রুহুল আমিন আব্বু উখিয়ার জালিয়াপালং ইউনিয়নের মনখালী গ্রামের জাফর আলমের ছেলে।

আটককৃতরা হলেন, টেকনাফ হোয়াইক্যং আমতলী পাড়া (পুলিশ ফাঁড়ির পশ্চিমে) এলাকার মৃত নুরল আলমের ছেলে নাসিম আলম (২০) এবং মৃত বাচা মিয়ার ছেলে আমির হোসন (৩০)।

র‌্যাব-১৫ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) আব্দুল্লাহ মো: শেখ সাদী তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

অপহরনের শিকার রুহুল আমিন বলেন, গত ১০ জুলাই তার পরিচিত মো: মিজান, নুরুল আমিন, কপিল ও বাবুল বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে হোয়াইক্যং এনে অজ্ঞাত একটি বাড়িতে আটকে রাখে। পরের দিন তারা আমাকে মারধর করে বলে যে আমাকে অপহরণ করা হয়েছে। পাঁচ লাখ টাকা না দিলে আমাকে মেরে ফেলবে। বাড়িতে ফোন করে অপহরণের বিষয়টি জানিয়ে টাকা আনার জন্য আমাকে নির্যাতনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। প্রথমে আমি বাড়িতে ফোন না করতে চাইলে নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে বাড়িতে ফোন করে বিস্তারিত জানাই। এরপরে আজ র‌্যাব আমাকে উদ্ধার করেছে।

স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আবচার কামাল কাজল বলেন, অপহরণকারীরা তার বাড়িতে ফোন করার পর তার (অপহৃতের) বাবা আমার সাথে কথা বলেন। আমি দ্রুত তাকে নিয়ে উখিয়া থানায় গিয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করি। উক্ত অভিযোগ নিয়ে র‌্যাব-১৫ হোয়াইক্যং এর কার্যালয়ে যোগাযোগ করে বিস্তারিত ঘটনা বলি। অপহরণকারীদের ফোন করা মোবাইল নাম্বারগুলো র‌্যাবকে দিই। পরে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাবের চৌকস একটি দল দ্রুত সময়ে অভিযান চালিয়ে অপহৃত রুহুল আমিনকে উদ্ধার করেছে।

র‌্যাব-১৫ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) আব্দুল্লাহ মো: শেখ সাদী বলেন, অপহরণের অভিযোগ পেয়ে প্রথমে অপরাধীদের অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে রাত সাড়ে তিনটায় অভিযান চালিয়ে হোয়াইক্যং পুলিশ ফাঁড়ির পশ্চিম পার্শ্বের রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংগলগ্ন গহীন জঙ্গলে অভিযান চালিয়ে দুইজনকে আটক করা হয়। পরে তাদের দেয়া তথ্য মতে জঙ্গলের ভেতরে একটি বাড়ি থেকে হাত পা বাধা অবস্থায় রুহুল আমিনকে উদ্ধার করা হয়। এসময় তাদের সহযোগিরা পারিয়ে যায়।

অপহৃত রুহুল আমিনের উদ্ধৃতি দিয়ে র‌্যাবের এ কর্মকর্তা বলেন, তিনি (রুহুল আমিন) একজন অটোরিক্সা চালক। ১০ জুলাই অপহরণকারীরা বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে কৌশলে তাকে অপহরণ করে বাড়িতে আটকে রাখে। প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা দিয়ে ভিকটিমসহ গ্রেফতারকৃতদের উখিয়া থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান র‌্যাবের এ কর্মকর্তা।

পাঠকের মতামত: