কক্সবাজার, শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১

বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস আজ, করোনা আক্রান্তের ৬৩ শতাংশই ডায়াবেটিস রোগী

নীরব ঘাতক ডায়াবেটিসে আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। বিশ্বের অন্যান্য দেশের সঙ্গে বাংলাদেশেও শহর থেকে গ্রামে শিশু থেকে বয়স্ক, নারী-পুরুষ সবার মধ্যে এ রোগটি ক্রমান্বয়ে ছড়িয়ে পড়ছে। যে হারে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা বাড়ছে, তাতে ধারণা করা হচ্ছে, দেশের মোট জনগোষ্ঠীর একটি বড় অংশ এর শিকার। বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতির (বাডাস) এক জরিপেও এর প্রমাণ মিলেছে। ওই জরিপে দেখা গেছে, দেশের ২৫ দশমিক ৬ শতাংশ মানুষ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। এ হিসাবে মোট জনগোষ্ঠীর এক-চতুর্থাংশেরও বেশি মানুষ ডায়াবেটিস রোগটি বহন করছেন। চলমান বৈশ্বিক করোনাভাইরাস মহামারি ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য আরও ঝুঁকি সৃষ্টি করেছে।

বিভিন্ন বৈশ্বিক গবেষণা ও দেশে করোনা সংক্রমিত রোগীর তথ্য পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীদের কভিড-১৯ সংক্রমণের ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি। দেশে গত সাত সপ্তাহে করোনা সংক্রমিতদের মধ্যে ৬৩ শতাংশ ডায়াবেটিস আক্রান্ত ছিলেন। একই সঙ্গে করোনার সংক্রমণ থেকে সুস্থ হওয়ার পর ৭৫ শতাংশ ডায়াবেটিস আক্রান্ত কোনো না কোনো দীর্ঘমেয়াদি শারীরিক জটিলতায় ভুগছেন। আবার করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর অনেকে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হয়েছেন। করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃতদের প্রতি তিনজনের একজন ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ছিলেন বলেও তথ্য মিলেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাডাস সভাপতি অধ্যাপক ডা. এ কে আজাদ খান সমকালকে বলেন, ডায়াবেটিস আক্রান্তদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অত্যন্ত কম থাকে। এ কারণে তারা কোনো ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করার মতো সক্ষমতা হারিয়ে ফেলেন।

দেশে এ অবস্থায় আজ পালিত হচ্ছে বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস। এবার দিবসটির প্রতিপাদ্য বিষয় ‘ডায়াবেটিস সেবা নিতে আর দেরি নয়’। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। দিবসটি উপলক্ষে আজ রোববার বাডাসের পক্ষ থেকে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে। গতকাল শনিবার বারডেম মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে দিবসটি উপলক্ষে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে দিনব্যাপী নানা কর্মসূচি তুলে ধরা হয়।

পাঠকের মতামত: